চলযাই নবান্ন উৎসবে

Published : অক্টোবর ২৭, ২০১৭ | 1278 Views

চলযাই নবান্ন উৎসবে

নবান্ন বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী শস্যোৎসব। কৃষিভিত্তিক অর্থনীতির গ্রাম বাংলার কৃষিজীবী সমাজে শস্য উৎপাদনের বিভিন্ন পর্যায়ে যে সকল আচার-অনুষ্ঠান ও উৎসব পালিত হয়, নবান্ন তার মধ্যে অন্যতম। “নবান্ন” শব্দের অর্থ “নতুন অন্ন”। নবান্ন উৎসব হল নতুন আমন ধান কাটার পর সেই ধান থেকে প্রস’ত
চালের প্রথম রান্না উপলক্ষ্যে আয়োজিত উৎসব। সাধারণত অগ্রহায়ণ মাসে আমন ধান পাকার পর এই উৎসব অনুষ্ঠিত হয়। এদেশের সকল ধর্মীয় জনগোষ্ঠীর নিকট এ উৎসব একটি সার্বজনীন উৎসব। তবে অমুসলিম রীতিতে নবান্ন অনুষ্ঠানে নতুন অন্ন পিতৃপুরুষ, দেবতা, কাক ইত্যাদি প্রাণীকে উৎসর্গ করে এবং আত্মীয়-স্বজনকে পরিবেশন করার পর গৃহকর্তা ও পরিবারবর্গ নতুন গুড় সহ নতুন অন্ন গ্রহণ করেন। নতুন চালের তৈরি খাদ্যসামগ্রী যেমন চিড়া, পিঠাপুলি, ভাত নিবেদন করা নবান্নের অঙ্গ একটি বিশেষ লৌকিক প্রথা। এ উৎসবের মধ্য দিয়ে বাংলার গ্রামীণ জীভনে প্রাণ চাঞ্চল্য ফিরে আসে। সকলের ভিতর এক অচ্ছেদ্র বন্ধনের ভিতকে মজবুত করে। কিন’ কালক্রমে বাংলাদেশের সংষ্কৃতি হতে এ উৎসবটি হারিয়ে যাচ্ছে।

গ্রামীণ সংস্কৃতির অন্যতম উসব এই নবান্ন উৎসবকে গ্রামীণ জীবনে পুনরুজ্জীবীত করার সামান্য প্রয়াস হিসেবে আমরা আয়োজন করতে যাচ্ছি “নবান্ন উৎসব ১৪২০“

যা যা থাকছে
কৃষকদের নতুন ধান কাটায় অংশগ্রহণ
নতুন ধান হতে চিড়া তৈরী
নতুন ধানের ভাত খাওয়া
নতুন ধানের পিঠাপুলি
নবান্ন উৎসবের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান

কবে হচ্ছে
৩০ কার্তিক-১ অগ্রহায়ণ

অংশগ্রহণকারী ফি
আবাসন (২ রাত) =৫০০ টাকা
খাবার (২ রাত, ২ সকাল, ২ দুপুর)= ৮০০ টাকা
নোয়াখালী উপকূলীয় এলাকা ভ্রমণ=২০০ টাকা

মোট ১৫০০ টাকা

খাবার মেন্যু
সকাল, দুপুর ও রাতের খাবারে থাকছে
দেশীয় মাছ
(কই, পুঁটি, শোল, মলা, বাইন
সামূদ্রিক মাছ
টেংরা, লইট্টা, পোয়া
ভর্তা
শুটকি, টাকি, থানকুনি, কলা
নতুন ধানের পানত্মা, চিড়া, পিঠাপুলি, নারিকলের লাড্ডু

উৎসব সূচী
সকল অংশগ্রহণকারীকে ১৩ নভেম্‌র ২০১৪ তারিখ সন্ধ্যা ৬ ঘটিকার ভিতর অনুষ্ঠান স্থলে পৌঁছাতে হবে।
১৩/১১/২০১৪
সন্ধ্যা ৭.০০-৯.০০ নতুন ধান কাটার প্রস্তুতি উৎসব (সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও লোকজ গান)
১৪/১১/২০১৪
ভোর ৫.০০-৭.০০ ধান কাটা
সকাল ৭.০০-৮.০০ ধানের জমিতে পানত্মা খাওয়
সকাল ৮.০০-১০.০০ ধান টানা ও পাল দেয়া
সকাল ১০.০০-১২.০০ ধান মাড়াই
১২.০০-২.০০ বিরতি
দুপুর ২.০০-৩.০০ নোয়াখালী উপকূলীয় এলাকা পরিদর্শনের প্রস্তুতি ও যাত্রা
বিকাল ৩.০০-৭.০০ নোয়াখালী উপকূলীয় এলাকা পরিদর্শন
রাত ৮.০০-১২.০০ লোকজ ও পালা গানের আসর ও নতুন ধানের চিড়া, পিঠাপুলি তৈরীর প্রস্তুতি
১৫/১১/২০১৪
ভোর ৫.০০-৭.০০ নতুন ধানের চিড়া ও পিঠাপুলি তৈরী
সকাল ৭.০০-১.০০ পাড়া উৎসব, নতুন শস্য উৎসর্গ ও নতুন ধানের পিঠাপুলি ভোজ

বিঃদ্রঃ
প্রত্যেক অংশগ্রহণকারী নারী-পুরুষ নির্বিশেষে সকলকে গ্রামীণ কৃষকের সাজে নবান্ন উৎসবের প্রত্যেকটি অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করতে হবে। তাই সকলকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণপূর্বক উৎসবে অংশগ্রহণ করতে অনুরোধ জানানো যাচ্ছে। যারা গ্রামীণ কৃষকের সাজে অংশ গ্রহণ করতে অনিচ্ছুক তাদের অংশগ্রহণ করার প্রয়োজন নেই। মাত্র ১০ জন ইচ্ছুক অংশগ্রহণকারীকে অংশগ্রহণ করার সুযোগ প্রদান করা হবে।

Published : অক্টোবর ২৭, ২০১৭ | 1278 Views

  • img1

  • অক্টোবর ২০১৭
    সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
    « সেপ্টেম্বর   নভেম্বর »
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫
    ১৬১৭১৮১৯২০২১২২
    ২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
    ৩০৩১  
  • Helpline

    +880 1709962798