ভ্রমনে যা যা আপনার সঙ্গী হতে পারে

Published : অক্টোবর ১৪, ২০১৭ | 1472 Views

ভ্রমনে যা যা সাথী হতে পারে

ন্যাশনাল আইডি কার্ড: নিতে ভুলবেন না।

ব্যাকপ্যাক: আমরা জানি আমাদের কাঁধের ঝোলাব্যাগ ছাড়া ভ্রমণ করা যায়না। নিচে যতকিছু আলোচনা হবে সব রাখার জন্য এই ঝোলা ব্যাগটাই সবার আগে নিতে হবে। ট্রাভেল ব্যাগ ছাড়া কি আর ট্রাভেল করা যায়? অবশ্যই ওয়াটার প্রুফ হওয়া চাই: ব্যাক প্যাকের একটি ছোট ভার্সণও থাকতে পারে।

পানির বোতল: মানুষ খাবার না খেয়ে তিনদিন থাকতে পারে কিন্তু পানি না খেয়ে একদিন থাকাও কঠিন। তাই পানি ও পানির বোতল সব সময় জীবন মরনের সঙ্গী।

সান গ্লাস: বাইরে বেরুলে সানগ্লাস আপনার চোখকে বেশী আলো থেকে সুরক্ষা দেবে।

ওয়াটার প্রুফ জ্যাকেট: শীতের দেশের জন্য। বিশেষ করে যেখানে বরফ পড়ে সেখানেতা লাগবেই।

রেইন কোর্ট:  বর্ষা দেশের জন্য। অল্প বৃষ্টিপাত হলেও ব্যাগে রাখা ভালো। বিশেষ করে যদি আপনি হেঁটে ভ্রমণ করেন বা প্রকৃতির কাছে যেতে চান।

পাতলা ফুল হাতা বিশেষ জামা: গরমের দেশের জন্য এটা বিশেষ কার্যকর। টি শার্ট হাতের অর্ধেক অংশকে রোদে পুড়িয়ে দেয়।

থ্রি কোয়াটার ট্রাউজার: গরমের দেশের জন্য পাতলা আর শীতের দেশের জন্য উপযোগিতা অনুসারে। নিচের অংশ খোলা থাকলেই ভালো।

আরামদায়ক কেডস: যাতে পানি প্রবেশ করবেনা। হালকা। আরাম দায়ক। এবং গোড়ালীর জায়গাটা জমাটবাঁধা। বিশেষ করে হাঁটা বা যেকোনো আউটিং এর জন্য কেডসটা বিশেষ উপকারী এটার জন্য পয়সা খরচা করার মানসিকতা থাকতে হবে।

মানসম্মত মোঝা: মোঝাটা খুবই স্পর্শকাতর। মোঝা সিলেকশনে ভুল হলে পায়ে ফোসকা পড়ে যেতে পারে। আপনার সফরে বিঘ্ন্ ছাড়াও হতে পারে কোনো ইনফেকশন। ভালো মানের একাধিকজোড়া মোঝা থাকতে হবে। সূতী এবং মোটা হলে ভালো। যদি বেশীদুর হাঁটতে চান বা ট্রেকিং করতে চান বা ট্রেলে যেতে চান।

বেজ লেয়ার বা ইনার কোর্ট : শীত বা বরফের দেশের জন্য এটা লাগবে। আপনার ওভার কোর্ট অতিরিক্ত ঠান্ডার বর্ম নাও হতে পারে।

বরফ কোর্ট: তুষাপাত হয় এমন এলাকার জন্য

ওয়ার্ম হ্যাট: এটা আপনার মুখের উপর সূর্যের ছায়া দেবে।

গ্লাভস: শীতের জন্য বা ব্যাগ হাতে রাখার জন্য কিংবা স্ট্রলার ক্যারি করার জন্য এটা অনেক কাজে দেবে।

খাবার স্যালাইন: শরীর থেকে বেরিয়ে যাওয়া লবন ও ঘামের ক্ষয় পূরণ করবে।

স্যাভলন: যেকোনো জীবনু নাশক হিসেবে কাজ করবে

ব্যান্ডেজ: কাজে লাগবে বিপদের সময়

মাথা ব্যথা ও পেটখারাপের ঔষধ: আগে থেকে সাথে না রাখলে বিপদের সময় বিপদে পড়ে যাবেন।

গামছা: গামছা অনেক কাজে লাগে। মাথায় বাঁধা যায়। কোমরে বাঁধা যায়। পরা যায়। কোনো কিছু বেঁধে নেয়া যায়। ঘাম শুকায়। রুমালের কাজ করে। তোয়ালের কাজ করে।

একটি বাঁশি: যেকোনো বিপদের সময় আপনার সাহায্য হতে পারে।

ছোট একটি আয়না: এটাও কাজে লাগতে পারে কঠিন বিপদের সময়।

একটি ছোট চাকু: কখনো কখনো আপনার জানও বাঁচাতে পারে এই জিনিস।

কিছু দড়ি: দূরে কোথাও বিশেষ করে পাহাড়ে জঙ্গলে দ্বীপে গেলে এটি নিতে ভুলবেন না।

লাইটার: আগুন সভ্যতার নিয়ামক। আগুন পানি বাতাস ছাড়া আমাদের জীবন চলবেই না।

মশা নিরোধক: কয়েল বা মশারী বা ক্রিম। পরিস্থিতি বুঝে

নাইট্রিক এসিড: লোকালয়ের বাইরে গেলে সাপ তাড়ানোর জন্য নাইট্রিক এসিড লাগবে।

মোবাইল ফোন: মোবাইল বা কোনো বাহ্যিক যোগাযোগ ছাড়া কি আমাদের একদিনও চলে? জঙ্গলে পাহাড়ে বেশী দিনের জন্য গেলে এন্টেনা নেয়া যেতে পারে। যদি সম্ভব হয় আর আপনিও বুনো জীবনে থেকে সভ্য জীবনের সাথে সংযোগ রাখতে চান। কেউ কেউ অবশ্য স্যাটেলাইট ফোন নিয়ে থাকেন।

চার্জার: হা এতো লাগবেই। ফোন কিংবা ল্যাপটপের বা ক্যামেরার জন্য। বেশীদিনের ভ্রমন হলে বএকাধিক ব্যাটারী ব্যাকআপও নিতে পারেন।

ফ্লাগ, এডাপ্টার, কনভার্টার, পাওয়ার ব্যাংক: থ্রিপিন ফ্লাগের জন্য কতজন কতজায়গায় বিপদে পড়ে যায়। তাই ফ্লাগ, এডাপ্টার, কনভার্টার, পাওয়ার ব্যাংক এই চারটি জিনিস যোগ হতে পারে আপনার ভ্রমণসঙ্গী তালিকায়।

ক্যামেরা, আইপড: একথা আমি কি বলবো। আপনিতো বুঝবেন আপনার ছবি তোলার প্রয়োজনের কথা।

কম্পাস: দিক নির্ণয়ের জন্য দরকার হতে পারে। বিশেষ করে যখন আকাশ পরিষ্কার থাকে না।

পকেট বুক, পকেট জায়নামায, তসবি পকেট কোরআন: বইপড়া, নামায, যিকির এসবের অভ্যাস থাকলে এই জিনিসগুলো আপনার কাজকে সহজ করে দেবে এবং আপনাকে মানসিক প্রশান্তি দেবে। ভ্রমণে বিশেষ করে একা ঘর থেকে বের হলে।

ডায়রী নোটবুক: ঘটনা, নাম তারিখ সময় অনেককিছুই আমরা পরে ভুলে যাই। এমন কি একটি ছোট স্থানের দেখা গেল আর কখনো মনে করত পারিনা। তাই  একটা নোটবুক সোজা কথায় খাতা-কলম থাকা চাই।

বটম বা চেইন ফাইল: জরুরী ফোন ফাইল রাখার জন্য ওয়াটারপ্রুফ একটা লক ফাইল থাকার দরকার, এবং সেটা আজ থেকেই। সফরে যাওয়ার আগে সফর সংক্রান্ত সব ফাইল বন্দী করে নিতে হবে না?

এয়ার প্লিজ: দলে ঘুরতে গেলে অন্যদের হৈচৈতে ঘুম নষ্ট হওয়ার আশংকা দেখা দিলে এটা আপনারই জন্য

আই কভার: অনেকে আলোতে ঘুমাতে পারেন না। যেমন আমি তাদের জন্য আই কভারেএকটু বেশী দরকার।

স্টেপ কাউন্টার: যদি পায়ে হেঁটে ভ্রমন করতে চান

উন্নত ট্রেকার:  ট্রেকার শুধু আপনার পথ দেখাবেনা। হারিয়ে যাওয়ার ভয় থাকলে আপনার খোঁজ পাওয়া সহজ হবে।

গাইডপোর্ট ডিভাইস: এটা আপনাকে পথ বলে দেবে। আপনি কোথায় আছেন। এবং কোন দিক থেকে কোন দিকে যাবেন।

একটি মানচিত্র: যতই গ্যাজেট থাকুক একটা মানচিত্র নিতে ভুলবেন না। জঙ্গলের চোট ট্রেইল হলে নিজেই একটা মানচিত্র তৈরী করে বা প্রিন্ট করে নিন।

সূতা বা সূতলী: রেখেই দেখের কি কাজে লাগবে।

কসটেপ: কখনো কখনো লাাগতেও পারে।

টাকা পয়সা: সে আর বলতে

ফয়েল বেড: এতে হালককা বেডে অধিক গরম

তাঁবু: লাগলেতো নিতে হবে। আর যদি না লাগে। তাহলে….

সাবান, শ্যাম্পু, পেস্ট ব্রাশ এর কথা নিশ্চই আপনাকে আর বলতে হবেনা।

 

(জাহাঙ্গীর আলম শোভন)

 

 

Published : অক্টোবর ১৪, ২০১৭ | 1472 Views

  • img1

  • অক্টোবর ২০১৭
    সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
    « সেপ্টেম্বর   নভেম্বর »
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫
    ১৬১৭১৮১৯২০২১২২
    ২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
    ৩০৩১  
  • Helpline

    +880 1709962798