৩ জনের মসজিদ: সম্ভবত বিশ্বের সবচেয়ে ছোট মসজিদ

Published : আগস্ট ২২, ২০১৭ | 1005 Views

প্রায় ৩০০ বছর আগে মসজিদটি প্রতিষ্ঠিত হয়। ঐসময় মুসলমানদের সংখ্যা ছিল অতি নগণ্য। একদিকে সংখ্যালঘু আর অন্যদিকে হিন্দু রাজার দাপটে কোন মসজিদ ছিলনা ঐ এলাকায়, তবুও অনেক প্রতিকূলতা স্বত্তেও তখনকার মুসলমান ভাইয়েরা তৈরী করেছিল এই মসজিদ। এই মসজিদে তখন এক কাতারে সর্বোচ্চ ৩জন মানুষ নামাজ আদায় করতে পারতেন। এই মসজিদ নিয়ে উক্ত এলাকায় অনেক গল্প শোনা যায়।

বর্তমানে পরিত্যক্ত অবস্থায় রয়েছে মসজিদটি। এখানে আর নামাজ পড়ে না কেউ। শুধুমাত্র কালের স্বাক্ষী হয়ে আছে এই মসজিদ।।

বগুড়া জেলার প্রাচীনতম শহর সান্তাহার। সেই সান্তাহার থেকে ৩ কিলোমিটার ভেতরে একটি গ্রাম, তারাপুর। সকাল সকাল  আমরা বের হলাম সেই গ্রামের উদ্দেশে। আঁকাবাঁকা রাস্তার দুই ধারে প্রচুর গাছ। গ্রামে ঢুকতেই কেমন জানি মনটা ভরে গেল।
মাটির বাড়ি সারিসারি এক তলা, দুই তলা। বেশ কয়েকটা বাড়ি পেরিয়ে পেঁৗছে গেলাম একটা প্রাইমারি স্কুলে
সেখানে সবাইকে এ মসজিদের কথা বলতেই আমাদের এর ঠিকানা বলে দিলেন। শুরু হলো মাটির রাস্তা। গ্রামের যে এত সৌন্দর্য
তা তারাপুর গ্রাম দেখলেই বোঝা যাবে। আমরা কয়েক মিনিটের মধ্যে পেঁৗছে গেলাম আমাদের লক্ষ্যস্থান সেই ক্ষুদ্র মসজিদের
কাছে।
সুনসান জায়গা। দেড়শ’ বছরের অধিক সময় ধরে এই মসজিদে নামাজ পড়া বন্ধ হয়ে আছে। কারা, কেন এই
মসজিদ নির্মাণ করেছিলেনএ নিয়ে বর্তমান গ্রামবাসীর মধ্যে অনেক  পুরান প্রচলিত আছে।
সান্তাহারের ছাতিয়ান গ্রাম ইউনিয়নেররানী ভবানীর বাবার বাড়ি। সান্তাহারের আশপাশসহ আমাদের তারাপুরও রানী ভবানীর বাবার রাজ্যত্ব ছিল। তারই অংশ হিসেবে রানী ভবানীর আসা-যাওয়া ছিল এ গ্রামে। একজন মুসলমান মহিলা এই গ্রামে ছিলেন,
যিনি পরহেজগার। হিন্দু অধ্যুষিত এলাকা হওয়ার কারণে ওই মহিলার নামাজ পড়ার অনেক অসুবিধা হতো। রানী ভবানী এমন
কথা জানতে পেরে তিনি নিজেই এই গ্রামে চলে আসেন আর সেই মহিলাকে যেন কেউ তার নামাজ পড়াতে অসুবিধা না করতে পারে, সে জন্য তার েপেয়াদারদের হুকুম দেন_ তার জন্য রাজকীয় নকশায় একটি মসজিদ তৈরি করে দেওয়া হোক। এভাবেই এ
মসজিদটি নির্মাণ করা হয়।

লম্বায় এই মসজিদের উচ্চতা ১৫ ফুট আর প্রস্থ৮ ফুট, দৈর্ঘ্য ৮ ফুট। মসজিদের দরজার উচ্চতা ৪ ফুট আর চওড়া দেড়
ফুট। একটি মানুষ অনায়াসে সেখানে ঢুকতে বা বের হতেপারবে। একটি গম্বুজ মসজিদ।

Published : আগস্ট ২২, ২০১৭ | 1005 Views

  • img1

  • Helpline

    +880 1709962798