চন্দ্রনাথ পাহাড়ে একদিন

Published : জুলাই ২১, ২০১৭ | 1074 Views

যাবো যাবো করে অবশেষে চলেই গেলাম। যতটা সহজ মনে করেছিলাম আসলে ছিলো ততটাই কঠিন। ধৈর্য্য এবং মনোবল না থাকলে এ জায়গা তাদের জন্য নয়। শুরু থেকে বলি এ পাহাঁড়ে উঠার সময় মাঝপথে গিয়ে অনেকে হাল ছেড়ে দে এমনই অনেকজনের সাথে আজ আমাদের দেখা হয়েছিলো তাদের দেখে আমরা ও ভাবতে লাগলাম আমরা কিভাবে উঠবো কিন্তু তাও আল্লাহ্র নাম নিয়ে হাঁটা শুরু করলাম, শুরুতেই আছে একটি ছোট ঝর্ণা কিন্তু যাএা শুরু করার সময় ঝর্ণায় সব শক্তি খরচ না করাই বেটার, এক্ষেএে আপনারা ফেরার পথেই ঝর্ণাতে মজা করতে পারেন যা আমরা করেছিলাম।

পথের শুরুতে দেখবেন ঝর্ণার পরে পাহাঁড়ে উঠার জন্য দু ধরনের পথ গিয়েছে হাতের বামে এবং ডানে, বামে হচ্ছে পাহাড়ি পথ আর ডানে হচ্ছে সিঁড়ি। কারো যদি কষ্ট করার ইচ্ছা থাকে তবে আপনারা সিঁড়ির পথ বেঁচে নিতে পারেন এবং অন্যদের মতো মাঝপথে গিয়ে হাল ছাড়তে বাধ্য হবেন কারণ সিঁড়িগুলো এতো উঁচু বলার মতো না এটা নামার জন্য পারফেক্ট কিন্তু উঠার জন্য না। যাই হোক আমাদের একজন স্থানীয় মানুষ বলাতে আমরা বাম পাশের রাস্তা ধরে উঠি।

উঠঁতে উঠঁতে এক পর্যায়ে হলো না আর সম্ভব না এবার Give up করতেই হবে কিন্তু পুরোপুরি মন তাও সাঁই দিলো না কারণ এতো দূর এসে আবার হাল ছেড়ে দিবো এটা আফসোস থেকে যাবে। তখন আমাদের একেকজনের অবস্থা ছিলো দেখার মতো না পারতে কিছুক্ষনের জন্য আমরা সবাই একটি পাহাড়ের চূড়ায়ঁ গাছের নীচে শুয়ে যায় এবং গাছে থেকে কিছু পেঁয়ারা পেরে তা খেয়ে সবাই শক্তি ফিরে ফেলাম ।

বলে রাখা ভালো বরফ পানি বোতল ভরে নিয়ে যাবেন তা না হলে এমন রোদে মরন ছাড়া উপায় নেই। যাই হোক সব বাঁধা পেরিয়ে অবশেষে আমরা সাকসেস হলাম, পৌঁছে গেলাম সে অপরুপ সৌন্দর্য দেখার সাক্ষী হতে  ঠিক সে মূহর্তটা আসলে লিখে বুঝানো সম্ভব না। সময় কোনদিকে চলে গেলো চূ্ড়ায় উঠার পর বুঝলামই না।তখন মনে হবে এমন সৌন্দর্য দেখার জন্য এতটুকু কষ্ট বারবার করলেও ক্ষতি কি।


এরপর আসুন ফেরার পালা, নামার সময় সবাই সিঁড়ির পথ বেঁচে নিবেন অনেক অল্প সময়ের মধ্যে নামতে পারবেন এবং নামার পথে আরো অনেক সুন্দর কিছু দেখবেন। আমাদের উঁঠতে সময় লেগেছিলো প্রায় দু ঘন্টার মতো কারণ আমরা বিশ্রাম নিয়ে নিয়ে উঠেছিলাম কিন্তু বেশিক্ষন বিশ্রাম নিলেও বিপদ এতে শরীর একবার ছেঁড়ে দিলে আর উঠঁতে মন চাইবে না।


একবার হলেও ঘুরে আসুন এমন জায়গা থেকে

যেভাবে যাবেন : চট্টগ্রামের সীতাকুন্ড বাজারে নেমে যে কোনো লোকাল সি.এন.সি কে চন্দ্রনাথ পাহাড় বললে নিয়ে যাবে এরপর বাকিটা পায়ে হেটেঁই যাবেন।

সূত্র: ট্রাভেলার্স অব বাংলাদেশ,  পোস্ট সাদিয়া চৌধুরী।

Published : জুলাই ২১, ২০১৭ | 1074 Views

  • img1

  • জুলাই ২০১৭
    সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
    « জুন   আগষ্ট »
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
    ৩১  
  • Helpline

    +880 1709962798