• প্রচ্ছদ
  • /
  • ভ্রমণ
  • /
  • ভ্রমণ সিলেটঃ বিছনাকান্দি ও রাতারগুল। স্বল্প খরচে অল্প সময়ে নিরাপদ ভ্রমণ।

ভ্রমণ সিলেটঃ বিছনাকান্দি ও রাতারগুল। স্বল্প খরচে অল্প সময়ে নিরাপদ ভ্রমণ।

Published : জুন ১৯, ২০১৭ | 2195 Views

ভ্রমণ সিলেটঃ বিছনাকান্দি ও রাতারগুল। স্বল্প খরচে অল্প সময়ে নিরাপদ ভ্রমণ।

পাংথুমাই ঝর্ণা এবং লক্ষণ ছড়া বিছনাকান্দির খুব কাছেই। অল্প কিছু টাকা বাড়তি খরচ করলেই পাংথুমাই ঝর্ণা এবং লক্ষণ ছড়া ঘুরে যেতে পারেন একই ভ্রমণে।

এক ভ্রমণ দিবসেই বিছনাকান্দি, পাংথুমাই ঝর্ণা এবং লক্ষণ ছড়া ঘুরতে পারবেন। তবে রাতারগুলের জন্য অন্য আরেকটি দিন বরাদ্দ করতে হবে, হয় আগের দিন না হয় পরের দিন। চারটা লোকেশন ঘুরতেই মিনিমাম ২ দিন লাগবে। এখানকার সবগুলো লোকেশনের সৌন্দর্যই পানি এবং পাহাড় কেন্দ্রিক তাই শীতকালে আসবেন না। মাঝ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত আসতে পারেন তবে এর বেশি দেরিতে আসলে শুধুই পস্থাবেন।

রাতারগুলকে “সোয়াম্প ফরেস্ট“ বলা হয় যা পৃথিবীতে খুবই বিরল। যাইহোক, আম্বরখানা থেকে রাতারগুল, আবার রাতারগুল থেকে আম্বরখানা সিএনজি রিজার্ভ করে ফেলুন, ভাড়া নিবে ৬০০-৭০০ টাকা, যেতে সময় লাগবে প্রায় ১ ঘণ্টা। যেহেতু রিজার্ভ সেহেতু একজন হলে যে ভাড়া পাঁচজন হলেও সে ভাড়াই অতএব আপনি যদি একা হন তাহলে একটু খোঁজাখুজি করুন ভাগ্য ভাল হলে আপনার মত অনেককেই পাবেন যারা গ্রুপ করার জন্য কাউকে খুজছে। গ্রুপ করুন আর চলে যান। আমি সিএনজি রিজার্ভ করার কথা বললাম একারনে যে, এই পথে লোকাল সিএনজি পাওয়া কষ্টসাধ্য আবার ফেরার পথে অনেক সময়ই সিএনজি পাওয়া যায় না তাছাড়া অন্য কোন যানবাহন পাওয়াও ভাগ্যের ব্যাপার।
সিএনজি থেকে নেমেই নৌকায় চড়তে হবে। মাঝিরা ভাড়া অনেক চাইবে তাই দরদাম করে ভাড়া ঠিক করুন। আশা করা যায় ৬৫০-৭৫০ টাকার মধ্যেই নৌকা পেয়ে যাবেন। একা হলে আগের মত গ্রুপ করুন তবে এক নৌকায় ৫-৬ জনের বেশি না উঠাই ভাল। নৌকা সাধারনত ঘাট থেকে রাতারগুলের ঠিক মাঝখানে অবস্থিত ওয়াচ টাওয়ার পর্যন্ত নিয়ে যাবে।

এবার আসি খরচপাতির বিষয়ে, ঢাকা থেকে আসলে, ঢাকা যাওয়া, আসা, থাকা এবং এই দুইদিন ঘুরাঘুরির জন্য জনপ্রতি ৩.৫-৪.৫ হাজার টাকাই যথেষ্ট যদি একটু হিসেব করে খরচ করেন। তবে যারা গ্রিনলাইন, স্কেনিয়া বা অন্য কোন এসি বাস এবং লাক্সারিয়াস হোটেলের ব্যাপারে চিন্তা ভাবনা করছেন তাদের হিসাব আলাদা। এবার আসি খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটা বিষয়ে।

ঢাকা-সিলেট রুটে বাস, ট্রেন এবং প্লেন সবই চলাচল করে। বাস এবং ট্রেনে প্রায় সমান এবং সমান ভাড়াই লাগে। যেটা ভাল লাগে সেটায়ই যাবেন, ৪৭০(নন এসি বাস) টাকার ভেতরেই সিলেট পৌঁছাতে পারবেন, ৬-৮ ঘন্টা সময় লাগতে পারে। যদি খুব ভোঁরে সিলেট পৌঁছাতে পারেন তাহলে ওই দিনেই আপনি বিছনাকান্দি, পাংথুমাই ঝর্ণা এবং লক্ষণ ছড়া ঘুরে ফেলতে পারবেন। তবে সিলেট পৌঁছাতে যদি লেট হয়ে যায় তাহলে ওইদিন শুধু রাতারগুল ঘুরবেন কারন রাতারগুল সিলেট শহরের মোটামুটি কাছেই এবং লোকেশনও মাত্র একটাই। তাছাড়া বিকেলই হল রাতারগুল ঘুরার জন্য উত্তম সময় কারন বিকেলে যেমন রোদের তাপ কম তেমনি দৃশ্যটাও হয় একদম মনের মত।

সিলেট বাস টার্মিনাল আর রেল স্টেশন দুটোই একদম কাছাকাছি অতএব বাসে বা ট্রেনে যেভাবেই যান রিক্সা নিবেন বাস টার্মিনাল থেকে। প্রথমেই আপনাকে রিকশায় আম্বরখানা যেতে হবে, ভাড়া নিবে ৫০-৬০ টাকা। সরাসরি আম্বরখানার রিক্সা না পেলে বন্দর বাজার পর্যন্ত রিক্সা নিয়ে নিবেন, ভাড়া নিবে ২৫-৩০ টাকা। তারপর বন্দর বাজার থেকে সিএনজি তে করে আম্বরখানা, ভাড়া নিবে জনপ্রতি ১০ টাকা। এখন আপনি বিছনাকান্দি বা রাতারগুল যেখানেই যান না কেন এই আম্বরখানা থেকেই সিএনজি নিতে হবে। এ পর্যায়ে এসে একটা গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিচ্ছি যদি পারেন গ্রুপ করে আসবেন, এতে যেমন বারতি একটা আনন্দ পাবেন তেমনি বেশ কিছু টাকাও বাঁচাতে পারবেন। তবে একান্তই যদি গ্রুপ করতে না পারেন হতাশ হবার কোন কারন নেই, পড়তে থাকেন সমাধান পেয়ে যাবেন।

সূত্র: সংগ্রহ

Published : জুন ১৯, ২০১৭ | 2195 Views

  • img1

  • জুন ২০১৭
    সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
    « মে   জুলাই »
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০  
  • Helpline

    +880 1709962798