গ্রামীণ পর্যটনে নতুন দিগন্ত কেরালার কুমারাকমে

Published : মে ২৩, ২০১৭ | 1741 Views

কেরালা ভ্রমণ

গ্রামীণ পর্যটনে নতুন দিগন্ত কেরালার কুমারাকমে

কেরালা রাজ্যের কুমারাকমে গ্রামীন লোকদেরকে সম্পৃক্ত করে কেরালা সরকার সাধারণ সুযোগ সুবিধাকে কাজে লাগিয়ে গ্রামীণ পর্যটনকে ফোকাস করে কিছু অভিনব পন্থা অবলম্বন করেছে। কমুইনিটি ট্যুরিজম ধারনার আলোকে সেখানকার লোকদেরকে সম্পৃক্ত করে তাদের উপর দায়িত্ব বর্তায়ে এবং তাদেরকে লাভের অংশীদার করে দায়িত্বশীল পর্যটন প্যাকেজ চালু করেছে। দিন দিন এসব ধারণা এতই জনপ্রিয় হচ্চে যে কুমারকমের আশপাশের এলাকাতেও তা ছড়িয়ে পড়ছে। আসুন জেনে নেয়া যাক সেসবের বিস্তারিত।

দায়িত্বশীল পর্যটনের অধীনে কুমারাকমে সামাজিক দায়বদ্ধতার কর্মসূচি শুরু হয় ২০০৮ সালের সেপ্টেম্বর মাস থেকে। সমাজজীবনের আরও কাছে পৌঁছে যাওয়ায় ক্ষেত্রীয় উন্নয়ন ও গন্তব্যস্থলগুলির সুযোগ-সুবিধার কথাগুলি জানা সহজ হয়েছে।

১. এলাকার গৃহবধূদের নিয়ে সুবর্ণ সাংস্কৃতিক দল

এলাকার গৃহবধূদের নিয়ে সংযুক্তির মধ্যে দিয়ে একটি সাংস্কৃতিক দল গড়ে তোলা হয়েছে, যার নাম সুবর্ণ সাংস্কৃতিক দল, যাঁরা পর্যটকদের সামনে বিভিন্ন ধরনের সাংস্কৃতিক প্রদর্শনী (থিরুভিথিরা, কোলকালি, ভাত্তাকালি) প্রস্তুত করে থাকে। দায়িত্বশীল পর্যটনের আরেকটি ভাল দিক হল শিশুদের নিয়ে পেশাদারী শিঙ্কারি মেলাম দল গঠন করা। ৮ থেকে ১৪ বছর বয়সী ছেলে-মেয়েদের নিয়ে এই দলটি তৈরি করা হয়, যেটি কেরালার সর্বপ্রথম শিশুদের শিঙ্কারি মেলাম দল। বর্তমানে কুমারকমের শিশু ও মহিলাদের বহু ছোট ছোট দল এই উৎসবে অংশগ্রহণ করছে। গন্তব্যস্থলগুলিতে কর্মরত হস্তশিল্প ও চিত্রশিল্প বিভাগগুলি লাভের মুখ দেখছে এবং এর সঙ্গে স্মারক সামগ্রীগুলির উন্নয়ন ও বিপণনের কাজও চলছে।

২. গ্রাম্য জীবনের অভিজ্ঞতা প্যাকেজ

কুমারকমের অনাবিষ্কৃত জীবনের অভিজ্ঞতা লাভের জন্য দুটি প্যাকেজ চালু করা হয়েছে। কুমারকমে গ্রাম্য জীবনের অভিজ্ঞতা এটি একটি বিশেষ প্যাকেজ। এই প্যাকেজের আওতাও কতৃপক্ষ ট্যুরিস্টদের গ্রামে নিয়ে যায়। সেখানে গ্রামীন পরিবেশকে বিদেশী পর্যটকদের উপযোগী করে পরিবেশন করা হয়। তবে মৌলিক পরিবেশ ও সংস্কৃতির কোনো হেরফের হয়না। এতে করে পর্যটকেরা সেখানকার গ্রামীন জীবনের সাথে পরিচিত হয় এবং স্থানীয় সংস্কৃতির স্বাদ পায়। এই প্যাকেজটি শুরু করার পর থেকে ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে।

৩. কৃষকদের সাথে একটি দিন
গ্রাম জীবনের অভিজ্ঞতা প্যাকেজের মতই আরেকটি জনপ্রিয় প্যাকেজ হলো ‘‘কৃষকদের সঙ্গে একটি দিন’’ । এটা কম্যুউনিটি ট্যুরিজম এর আওতায় পড়ে। যেসব পর্যটক এসব প্যাকেজের আওতায় কেরালা ভ্রমণ করেন। সেসব প্যাকেজ থেকে অর্জিত টাকা কেরালা ট্যুরিজম কতৃপক্ষ অংশগ্রহণকারী কৃষকদের মাঝে ভাগ করে দেন।  দুটি প্যাকেজের সফলতায় কেরালা সরকার অনুরুপ আরো প্যাকেজ তৈরীর কথা ভাবছে।

 

৪. এলাকার সৌন্দর্য বিধান

কুমারকমের আদিবাসী অঞ্চলগুলিতে দায়িত্বশীল পর্যটন পরিবেশগত উন্নয়নের পথকে সুগম করেছে। সড়ক সমীক্ষা ও রাস্তার আলোর সমীক্ষা সম্পূর্ণ হয়েছে এবং সরকারের তরফে দ্রুততার সঙ্গে হস্তক্ষেপের ফলে সমস্যার সমাধান হয়েছে। গ্রামীন সড়কে পর্যটকদের কথা ভেবে সড়কে প্রয়োজনীয় আলোর ব্যবস্থা করা হয়েছে রেসপন্সিবল ট্যুরিজম কর্মসূচির অংশ হিসেবে আরেকটি বৈপ্লবিক পরিবর্তন সম্ভব হয়েছে, আর তা হল, প্লাস্টিক বর্জ্য নিয়ন্ত্রণ ও পরিষ্কারের কাজ। এই অঞ্চল থেকে প্লাস্টিকের থলে পুরোপুরি দূর করার জন্য কঠোর আইন প্রয়োগ করা হয়েছে। সমৃদ্ধি কার্যকলাপ দলের মাধ্যমে কাপড়ের ও কাগজের থলে ব্যবহারকে উৎসাহিত করা হয়েছে। কুমারকমকে বর্জশূন্য করে তোলার জন্য গৃহীত কর্মসূচি বর্জ্যশূন্য কুমারকম তার প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে। সকলের সহযোগিতায় এই প্রকল্প আলোর মুখ দেখবে বলে তারা আশাবাদী।

জনসম্পৃক্ত পর্যটন
জনসমুদায়মুখী পর্যটনের অঙ্গ হিসেবে অনেক নতুন নতুন ধারণা উঠে আসছে। এইরকমই একটি ধারণার ফল হচ্ছে উৎসব পঞ্জিকা, যেটি আপনাদের সংশ্লিষ্ট স্থানের বিভিন্ন উৎসবগুলি ও তার ইতিহাস সম্পর্কে সম্যক ধারণা দেয়। কোন স্থানের স্থানিক রূপরেখা, স্থান সংক্রান্ত তথ্যপত্র ও সম্পদের মানচিত্রায়ন সেই স্থান সম্পর্কে যেখষ্ট গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিতে পারে এবং সেই সঙ্গে পর্যটনের সুযোগেরও সন্ধান দিতে পারে। গন্তব্যস্থলের শ্রমিক তথ্যপত্র, সামাজিক সমস্যাগুলির পর্যালোচনা ও সেগুলির সমাধান, পরিকাঠামোগত ফাঁক পূরণ করা, সেখানকার নিরাপত্তা সংক্রান্ত সমস্যাগুলির সমাধান করা ইত্যাদি কাজ সম্পন্ন করা হয়েছিল। ৪৬৩ টি বাড়িতে চালানো মূল গন্তব্যস্থলগত সমীক্ষা চালানো হয়েছিল এবং ২৮৩টি বাড়িতে চালানো সামাজিক সমীক্ষা বেশ ভাল সাড়া পেয়েছিল।
এছাড়া বনের পরিচর্যা্, মৎস চাষ, পাখি অভয়ারন্য, সাইকেছে চড়ে গ্রাম দেখা ইত্যাদি সেবা চালু করেছে। এগুলোর জন্য কতৃপক্ষ কোনো কর্মী নিয়োগ করেনি। কেবলমাত্র স্থানীয় গ্রামবাসীদের মধ্যে উৎসাহী এবং পারঙ্গম ব্যক্তি ও পরিবারগুলোকে সম্পৃক্ত করেছে ফলে তাদের আয় বাড়ছে এবং আগ্রহ বৃদ্ধি পাচ্ছে এসব জীবনমূখী পর্যটনের মাধ্যমে সামাজিক উন্নতি চোখে পড়ার মতো। বিভিন্ন প্যাকেজ যেমনি জনপ্রিয় হচ্ছে তেমনি আয় বাড়ছে স্থানীয় জনসাধারনের।

ভাবছেন একটা ঘুর দেবেন নাকি? তাহলে ভিসাটা করে নিন। আর টিকেট কবে খালি আছে দেখে নিন। িএজন্য ভিজিট করুন চলবে ডট কম। আর ফোন করুন ০১৭০৯ ৯৬২৭৯৭ এই নম্বারে ভিসা এবং টিকেট দুটোর জন্যই। পাসপোর্টটা হাতের কাছে রাখুন। চলবে ডট কম এর কাস্টমার কেয়ার নাম্বারে যোগাযোগ করুন যেকোনো সেবা পেতে। ফোন: 01709 962797। বিমানের টিকেট ছাড়াও ট্যুরিস্ট ভিসা প্রসেস ও ট্যুর অপারেট করার জন্য চলবে ডট কম বিশ্বস্ত নাম। আপনি চলবে.কম এর সাথে যোগাযোগ করতে যুক্ত থাকুন ফেসবুকে পেজের সাথে https://www.facebook.com/CholbeTeam. আপনি ভিসা, মাস্টার কার্ড ও এমেক্স কার্ড দিয়ে সহজে ঘরে বসে পেমেন্ট দিয়ে নিতে পারেন বিমানের টিকেট

সূত্র: কেরালা ট্যুরিজম ডিপার্টমেন্ট এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইট,

সম্পাদনা: জাহাঙ্গীর আলম শোভন

Published : মে ২৩, ২০১৭ | 1741 Views

  • img1

  • Helpline

    +880 1709962798