শমসের গাজীর রহস্যময় সুড়ঙ্গপথ, ফেনী

Published : মে ৪, ২০১৭ | 1472 Views

ফেনী জেলার ছাগলনইয়া একসময়ের ভাটির বীর শমসের গাজীর বাগান বাড়ির অবস্থান। একসময় এ অঞ্চলের একমাত্র পরাক্রমশালী শাসক ও স্থানীয় পরাশক্তি যোদ্ধাশাসক  শমসের গাজির বাড়ি। মূলত এ বাগান বাড়িতেই একসময় তার প্রাসাদ। । ৩৫০ বছর পূর্বের একজন শাসক কীভাবে তার সেনা দূর্গ ও রাজধানী প্রতিরক্ষার জন্য  আধুনিক রণকৌশল ও দূরদৃষ্টির পরিচয় দিয়েছেন তার বহু নির্দর্শন মিলবে এখানে। সৌখিন বংশীবাদক শমেসের গাজী সমসাময়িক কালে বাংলার একমাত্র শাসক যিনি
ত্রিপুরা অধিকার করেছিলেন এবং ফেনীর চম্পক নগর থেকে পুরো রাজ্য পরিচালনা  করেছেন। তিনি রাজধানীতে না থেকে তার জন্ম ভিটায় থাকতে বেশী পছন্দ করতেন।  এখানে তার একটি কেল্লাও ছিলো।

বীর ‬শমসের গাজী তার মাতার নামে এ দীঘি খনন করলেও এটা এখন শমসের গাজীর দিঘী হিসেবে পরিচিত। এ দীঘি ছাগলনাইয়া উপজেলা সদরের নিকটবর্তী ভারতীয় সীমান্তের কাছে সোনাপুর গ্রামে অবস্থিত। ৪.৩৬ একর আয়তনের এ দীঘি ১/৩ভাগ ভারতীয় অংশে পড়েছে।
এই দিঘীর পাড়ে রয়েছে শমেসের গাজীর সুড়ঙ্গ। এটি একসময় বন্ধ করে দেয়া হলেও। এর স্মৃতিচিহ্ন এখনো রয়েছে। কথিত আছে এই সুড়ঙ্গ পথ দিয়ে রানীরা দিঘীতে গোসল করতে যেতেন। এছাড়া এই সুড়ঙ্গ নিয়ে নানারকম ও লোককথা রয়েছে। ব্রিটিশদের সহায়তায় ত্রিপুরার রাজা যখন শমসের গাজীর বসভিটা আক্রমণ করেন এবং তা গুড়িয়ে দেন। তখন তিনি এখানে আশ্রয় নিয়েছিলেন বলে অনেকে মনে করে থাকেন। যদিও শেষ রক্ষা হয়নি। কারণ গাজী ছিলেন একজন শিল্পরসিক ও প্রেমিক পুরুষ। তিনি বাঁশি বাজাতে পছন্দ করতেন এবং বাঁশির সুর ভালোবাসতেন। ত্রিপুরা রাজা তাকে হত্যা করার জন্য গভীর রাতে একজন বংশীবাদক দিয়ে বাঁশির সূর তোলেন। পরে গোপনীয় স্থান থেকে বেরিয়ে আসেন তিনি। এবং তাকে নির্মম ভাবে হত্যা করা হয়। একজন বীর যোদ্ধার জীবনাবসান এবং এই অঞ্ছলে ব্রিটিশ আধিপত্য একসাথে প্রতিষ্ঠিত হয়।

Published : মে ৪, ২০১৭ | 1472 Views

  • img1

  • Helpline

    +880 1709962798