৭১ এর মুক্তাঞ্চল : তেঁতুলিয়া

Published : মার্চ ২৬, ২০১৭ | 1160 Views

৭১ এর মুক্তাঞ্চল তেঁতুলিয়া

বাংলাদেশের যে চারটি থানা মুক্তিযুদ্ধকালে মুক্তাঞ্চল হিসেবে পরিচিত ছিল, তেঁতুলিয়া তার একটি। ৭৪ বর্গমাইলের এই থানার সমগ্র এলাকা ছিল পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর আগ্রাসনমুক্ত।  এখান থেকে উত্তরাঞ্চলের মুিক্তযোদ্ধাদের সার্বিক কর্মকাণ্ড পরিচালনাসহ রিক্রুটিং, প্রশিক্ষণ, অস্ত্রের জোগান দেওয়া ইত্যাদি কর্মকাণ্ড পরিচালিত হয়।

তেঁতুলিয়া তখন ৬ নম্বর সেক্টরের অধীন ৬/ক সাব-সেক্টরের হেডকোয়ার্টার হিসেবে কার্যক্রম চলত। মুক্তিযুদ্ধের সময় এখানে সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহমদ, ক্যাপ্টেন মনসুর আলী, এ এইচ এম কামরুজ্জামান ও কর্নেল ওসমানী এসেছেন। যুদ্ধের প্রস্তুতি এবং মুক্তিযোদ্ধাদের খোঁজখবর নিয়েছেন। সেক্টর কমান্ডার এম কে বাশার, সাব-সেক্টর কমান্ডার স্কোয়াড্রন লিডার সদরুদ্দীন, ক্যাপ্টেন নজরুল হক, ক্যাপ্টেন শাহরিয়ার, লে. মাসুদ ও লে. মতিন তেঁতুলিয়া থেকেই যুদ্ধ পরিচালনা করতেন।

সে সময়ের সার্কেল অফিসার (উন্নয়ন) মতিউর রহমান মুজিবনগর সরকারের আনুগত্য ও হলফনামা প্রদান করেন। মুজিবনগর সরকার থেকে তাঁকে নির্দেশ দেওয়া হয় স্থানীয় প্রশাসন চালিয়ে নিতে।
মুক্তাঞ্চলের থানা তেঁতুলিয়া বিদেশি সংবাদমাধ্যমের ব্যাপক দৃষ্টি আকর্ষণ করে। ফলে বিপুলসংখ্যক বিদেশি গণমাধ্যমকর্মী তেঁতুলিয়ায় এসে ফ্রন্টে গিয়ে সরাসরি মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে কথা বলেন। শরণার্থী ও মুক্তাঞ্চলের সাধারণ মানুষের সঙ্গে কথা বলেন। মার্ক টালি ও উইলিয়াম ক্রলি তেঁতুলিয়ার আওয়ামী লীগের নেতা আবদুল জব্বারের সঙ্গে কয়েক দিন ধরে ঘুরে ঘুরে দেখেন ভজনপুর এলাকার যুদ্ধক্ষেত্র। এখান থেকে এমদাদুল হকের সম্পাদনায় প্রকাশিত হতো সাপ্তাহিক সংগ্রামী বাংলা নামের একটি পত্রিকা।
তেঁতুলিয়া থানার পাশে একটি লম্বা টিনের ঘরে মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য স্থাপন করা হয় ফিল্ড হাসপাতাল। পঞ্চগড় থানা স্বাস্থ্যকেন্দ্র ও তেঁতুলিয়া থানার দাতব্য হাসপাতালের সীমিত সুযোগ-সুবিধা কাজে লাগিয়ে ১০টি শয্যা চালু করা হয়। পঞ্চগড় থানা স্বাস্থ্যকেন্দ্রের জিপ গাড়িটি অ্যাম্বুলেন্স হিসেবে ব্যবহূত হতো। পঞ্চগড় চিনিকলের চিকিৎসক আতিয়ার রহমানের তত্ত্বাবধানে  এখানে সেবিকা হিসেবে রোকেয়া, সালমা, সহকারী তফিজ, চালক ইউনুস ও টেকনিশিয়ান সেলিম রেজা কাজ করতেন। একসময় এই হাসপাতালে যোগ দেন ইন্টার্নি ডা. হাসিনা বানু ও ডা. শামসুদ্দিন দম্পতি।
মুক্তিযুদ্ধের নয়মাসকালে তেঁতুলিয়া মুক্তাঞ্ছল ছিলো। এলাকাবাসী এটার সরকারী স্বীকৃতিচায় ।

Published : মার্চ ২৬, ২০১৭ | 1160 Views

  • img1

  • Helpline

    +880 1709962798