কমুউনিটি ট্যুরিজম প্রসঙ্গ

Published : ফেব্রুয়ারি ২৬, ২০১৭ | 1820 Views

কমুউনিটি ট্যুরিজম

আমাদের মতো দেশগুলোর ট্যুরিজম সেক্টরে উন্নতির একটা ভালো পথ হলো কমিউনিটি ট্যুরিজম প্রতিষ্ঠা করা। এটা যদি করা যায় তাহলে দেশের পর্যটনের চেহারা রাতারাতি বদলে যাবে। বিশেষ করে যেসব পর্যটন এলাকা মূল শহর থেকে দূরে বা যেগুলোতে এখনো অনেক সুযোগ-সুবিধা প্রতিষ্ঠিত হয়নি, সেসব এলাকার ট্যুরিজমের উন্নতি হবে। আমাদের চেয়ে দরিদ্র দেশগুলো কমিউনিটি ট্যুরিজম থেকে লাভবান হয়েছে। আমি আমার একটা লেখা থেকে কোট করব। ‘মঙ্গোলিয়ার মতো দেশ কমিউনিটি বেইজড ট্যুরিজমের মাধ্যমে ব্যাপক সাফল্য অর্জন করেছে। দরিদ্র দেশ কম্বোডিয়াও এ ক্ষেত্রে চমকপ্রদ উন্নতি সাধন করেছে। ১৯৯৮ সালে কম্বোডিয়ায় পর্যটক সংখ্যা ছিল ৯৬ হাজার আর সে বছর বাংলাদেশে পর্যটক সংখ্যা ছিল এক লাখ ৫০ হাজার। আর ২০০৬ সালে কম্বোডিয়াতে পর্যটক সংখ্যা ২০ লাখ আর বাংলাদেশে মাত্র দুই লাখ। ২০০৬ সালে পর্যটন খাতে কম্বোডিয়ার আয় ১০ বিলিয়ন ডলার আর বাংলাদেশের আয় ৮৯ মিলিয়ন ডলার।

কমুউনিটি ট্যুরিজম এর মূলকথা হল স্থানীয় জনসাধারণকে সম্পৃক্ত করে তাদের সাথে ট্যুুরিস্টদের সম্পর্ক উন্নয়ন ও সেবা বিনিময়ের মাধ্যমে উভয় পক্ষের নিরাপত্তা ও আর্থিক সুবিধা নিশ্চিত করার মাধ্যমে কমুউনিটি ট্যুরিজম ব্যবস্থার সফলতা ঘরে তোলা যায়। আমাদের মতো দেশের জন্য এটা খুব জরুরী।

Published : ফেব্রুয়ারি ২৬, ২০১৭ | 1820 Views

  • img1

  • ফেব্রুয়ারি ২০১৭
    সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
    « জানুয়ারি   মার্চ »
     
    ১০১১১২
    ১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
    ২০২১২২২৩২৪২৫২৬
    ২৭২৮  
  • Helpline

    +880 1709962798