লাকমাছড়া’র জলে

Published : ফেব্রুয়ারি ২০, ২০১৭ | 3405 Views

সুনামগঞ্জের লাকমাছড়া

এখানে নিজেকে ভাসিয়ে দিতে পারবেন শ্রোতের সাথে অনুকুলে। আপনাকে ভাসাবে তবে তুলে নিয়ে যাবেনা এটা বলা যায়। শহরের কোলাহল থেকে এক ভিন্ন জগতে আনি নিজেকে আবিষ্কার করবেন। এখানে  কোন যানবাহনের শব্দ নেই . নেই ইট কাঠ পাথরের বড় বড় অট্টালিকা। এখানে পাখির কুজন, হিজলের বিজন, ছলছল পাহাড়ী নদী  আর মেঘালয়ের মায়াময় পাহাড়গুলো দেখবেন কাছ থেকেই।  জলপথ ধরে প্রাকৃতিক শোভা প্রাণ জুড়িয়ে দেয়া এক অনুভূতি দেবে। হাওরের স্বচ্ছ নীল জলের সঙ্গে চারদিকে হিজল-করচের শোভা সে এক ভারি সুন্দর। সারাদিন হাওড় চষে  বেড়াবেন আর রাতে চলে  সীমান্তবর্তী এলাকা টেকেরঘাটে ঘুরে আসবেন।  বাংলাদেশের হাওর আর অন্য পাশে ভারতের মেঘালয়ের পর্বতমালা। আছে একটি চুনাপাথর প্রকল্প, যা বর্তমানে পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে আছে। পাহাড়ের ভেতর দিয়ে বয়ে যাওয়া জাদাকাঠা নদী। যেন এক মায়াবী আচ্ছাদন, বাদামী বালি আর খন্ড পাথরের তা ধুরে তির তির বয়ে চলেছে অনাবিল।

খুব কোছে গেলে যোগাযোগর মাধ্যম। মোটর বাইক। লাকমাছড়ার পানিপ্রবাহের ওপর দিয়ে বাইকে চড়ে মেঘালয় পর্বতমালার দিকে এগিয়ে চলুন। আপনাকে নিয়ে যাবে মোটর বাইক আরোহী। । নির্বিঘ্নে আমরা পানির ওপর দিয়ে এগিয়ে যাবেন, । হাতের কাছে টলটলে পানি আর সামনে মেঘালয়। লাকমাছড়া প্রবেশের পর বিস্ময়ের যে ঘোর শুরু হয়, তা যেন কাটতেই চায়না। চাইলে নেমে পড়তে পারেন লাকমাছড়ার জলে!

তাহিরপুরের টাঙ্গুয়ার হাওর, লাকমা ছড়া, যাদুকাটা নদী, ট্যাকেরঘাটে পর্যটকদের ঢল নামে।  ছুটির দিনে শত শত পর্যটক এসব এলাকায় ঘুরতে আসেন। ঈদের আগে ও পরে পর্যটকদের সংখ্যা আরো বেড়ে যায়। প্রতিদিনই টাঙ্গুয়ার হাওর, লাকমা ছড়া, যাদুকাটা নদী, বারকের টিলা, ট্যাকেরঘাটে শত শত পর্যটক আসছেন পরিবার-পরিজন নিয়ে। পর্যটকদের জন্য ইতিমধ্যে অনেকে গেস্ট হাউজ নির্মাণের চিন্তা ভাবনা করছেন। এক্ষেত্রে সরকারের দ্রুত এগিয়ে আসা উচিত।
পর্যটকরা বলেন, আগামীদিন গুলোতে বিপুল সংখ্যক বিদেশ পর্যটক আসার সম্ভাবনা আছে তাহিরপুরে।

তাহিরপুরের  দেশ-বিদেশের পর্যটকরা এখানে ঘুরতে আসার আগেই ফোনে রেস্ট হাউজের রুম বুকিং দেন। এখানে পর্যটকদের চাহিদামত থাকা-খাওয়া, ঘোরাঘুরি জন্য নৌকার ব্যবস্থা করে দেয়া হয়। তবে এখানে থাকা খাওয়ার ব্যবস্থা খুব ভালো তা নয় হয়তো বা যোগাযোগ করতে পারলে একটা উপায় হয়ে যায়। তবে ফ্যামিলি নিয়ে ঘুরতে গেলে এগুলো আগেই ঠিক করে রাখুন।

 

ছবি: staticflickr.com

Published : ফেব্রুয়ারি ২০, ২০১৭ | 3405 Views

  • img1

  • ফেব্রুয়ারি ২০১৭
    সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
    « জানুয়ারি   মার্চ »
     
    ১০১১১২
    ১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
    ২০২১২২২৩২৪২৫২৬
    ২৭২৮  
  • Helpline

    +880 1709962798