সেন্টমার্টিন দ্বীপকে পরিচ্ছন্ন রাখার আহবান

Published : ফেব্রুয়ারি ৫, ২০১৭ | 1737 Views

সেন্টমার্টিন দ্বীপকে পরিষ্কার রাখার আহবান

প্রবাল দ্বীপ সেন্টমার্টিন প্রতিদিন পর্যটকদের ফেলে রাখা বর্জতে দূষিত হয়ে যাচ্ছে। এতে জীব বৈচিত্রের ক্ষতি হওয়ার আশংকা করছেন বিশেষজ্ঞরা। এজন্য পর্যটকদের সচেতন হওয়ার জন্য আহবান জানিয়েছেন অনেকে। দেশের ট্যুরিজম নিয়ে ভাবেন এমন ব্যক্তিরা বিষয়টি গুরুত্বসহকারে ভেবে দেখার জন্য সরকারের প্রতি আহবান জানিয়েছেন।

গত ২৪ ডিসেম্বর এই ব্যাপারে প্রথম বৈঠকটি হয় সেন্টমার্টিন দ্বীপের পশ্চিম সৈকতে। সেন্টমার্টিন ইউনিয়েনের চেয়ারম্যান জনাব নূর মোহাম্মদ এর সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি ছিলেন সমবায় মন্ত্রণালয়ের সচিব , এতে আলোচনা করেন পায়ে হেঁটে তেঁতুলিয়া থেকে টেকনাফ ভ্রমণকারী ও পর্যটন লেখক জনাব জাহাঙ্গীর আলম শোভন এবং বিশিষ্ঠ গবেষক জনাব কামরুল হাসান। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন ২ নং ওয়ার্ডের চেয়ারম্যান ‍জনাব হাবিব খান।

দীর্ঘদিন ধরে দ্বীপে পর্যটকদের প্লাস্টিক বর্জ ও হোটেল রেস্টুরেন্ট এর  উচ্ছিস্ট ফেলে নোংরা করা হচ্ছে। সেগুলো আবার সৈকেতে পড়ছে। দূর্গন্ধ ছড়াচ্ছে এবং সৌন্দর্য নষ্ট হচ্ছে। এরই প্রেক্ষিতে তড়িত ব্যবস্থা নেয়ার আহবান জানানো হয়।

জাহাঙ্গীর আলম শোভন বলেন, পৃথিবীর অনেক দেশ রয়েছে যেখানে দ্বীপে প্রবেশের জন্য এন্ট্রি ফি দিতে হয়ে। এখানে দ্বীপে প্রবেশের জন্য মানুষ যেখানে দৈনিক ৫০০ থেকে ১৫০০ টাকা খরচ করে। থাকা ও খাওয়া মিলে আরো ২/৩ হাজার টাকা জনপ্রতি খরচ হয়। সেখানে যদি প্রতিটি টিকেটের সাথে ৫০ টাকা উন্নয়ন বা পরিবেশ ফি হিসেবে আদায় করে। সে অর্থ দিয়ে এর সৌন্দর্যবর্ধন ও পরিবেশ রক্ষার কাজে ব্যবহার করা হয় তাহলে ‍সরকারের অর্থব্যয় না করেই কাজগুলো করা যায়।

এটা ইউনিয়ন পরিষদ এর মাধ্যমে হতে পারে। হতেপারে জেলা পরিষদ নিয়ন্ত্রিত একটি কমিটি করার মাধ্যমে এমনকি বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশন কিংবা কোস্টগার্ডের নিয়ন্ত্রনেও হতে পারে।

তবে সরকারের জন্য বসে না থেকে সচেতন নাগরিক গণ এখনো কাজে লেগে যেতে পারেন।

কামরুল হাসান বলেন, বাংলাদেশের প্রতিটি ট্যুরিজম স্পট এমনকি সমুদ্র সৈকতগুলোকে আরো পর্যটন বান্ধব করার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে হবে।

সচিব বলেন, সরকার পর্যটনকে গুরুত্ব দিয়েছে। সেন্টমার্টিন দ্বীপও তার বাইরে নয় এই বিষয়ে ইতিবাচক পদক্ষেপ সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনায় নেবে আশা করি।

চেয়ারম্যান নূর মোহাম্মদ বলেন, আমরা দ্বীপের উন্নয়নের জন্য কাজ করতে চাই। এ ব্যাপারে সরকারের নির্দেশনার অপেক্ষায় রয়েছে।

ইউপি সদস্য হাবিব খান বলেন, সবাইকে নিয়েই সেন্টমার্টিন দ্বীপকে রক্ষা করতে হবে। এ ব্যাপারে আমরা পর্যটকদের সহযোগিতা চাই। বিশেষ করে নোংরা করা থেকে তারা যদি বিরত থাকেন। তাহলে কাজটা সহজ হয়ে যায়।

 

Published : ফেব্রুয়ারি ৫, ২০১৭ | 1737 Views

  • img1

  • ফেব্রুয়ারি ২০১৭
    সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
    « জানুয়ারি   মার্চ »
     
    ১০১১১২
    ১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
    ২০২১২২২৩২৪২৫২৬
    ২৭২৮  
  • Helpline

    +880 1709962798