বাংলাদেশে বিক্রি হয় এমন উদ্ভট ১০ টি পন্য ও সেবা

Published : আগস্ট ২২, ২০১৬ | 1571 Views

গোবর বিক্রি

বাংলাদেশে বিক্রি হয় এমন উদ্ভট ১০ টি পন্য ও সেবা

জাহাঙ্গীর আলম শোভন

আজব দেশ কথাটা আমরা প্রায় বলে থাকি। কখনো কোনো ব্যক্তির উদ্ভট আচরনে কখনো কোনো রাজনীতিবিদ এর কথা শুনে, কখনো সরকারী আজগুবি সিদ্ধান্ত দেখে আমরা এমনটা বলে থাকি। কিন্তু এমন অনেক প্রচলিত প্রথা আমাদের সমাজে প্রচলিত আছে। যেগুলো স্বাভাবিক ভাবে চিন্তা করলে আমাদের কাছে আজগুবি মনে হতে পারে। কিন্তু আমাদের চোখের সামনে অবলীলায় ঘটে বিধায় আমরা এগুলোকে স্বাভাবিক মনে করি।

 

১. মাছের ফোকনা বা ফুসফুস

মাছ কাটার পর আমরা দেখি যে মাছের মধ্যে বাতাসভর্থি পলিথিনের মতো একটা ফোকনা থাকে। এটা মাছের ফুসফুস। সাথে নাড়িভুড়ি থাকে। মাছের এসব জিনিস ভালো দামে বিক্রি হয়। না দেশের লোকেরা কিনে খায়না। বরং এটা বিদেশে রফ্তানী হয় প্রাকৃতিক তন্তু ও ক্যাপসুলের খোলস এবস বানানোর কাজে ব্যবহার করা হয় বলে।

২. ছাই

একবার ইত্যাদি অনুষ্ঠানে একটা কল্পিত বিজ্ঞাপন দেখানো হয়েছে। কনসেপ্টটা ছিলো এই যেহারে বিজ্ঞাপন এর সংখ্যা বাড়ছে তাতে ভবিষ্যতে ছাই বিক্রি হবে এবং সেজন্য ছাইয়ের বিজ্ঞাপনও তৈরী হবে। খুব বেশীদিন হয়নি ছাই বিক্রি হচ্ছে। এমনকি অনেক সুপার স্টোরে এখন ছাই কিনতে পাওয়া যায়।

৩. দোয়া

ভাবছেন এটা আবার কেমন কথা। দোয়া বদদোয়া কিভাবে বিক্রি হয়। আমরা নিজেদের অজান্তে এগুলো ক্রয় বিক্রয় করি। ভিক্ষুককে ভিক্ষা দেয়ার সময় বলে দিই, আমার জন্য দোয়া করবেন। অথবা ভিক্ষুকই তার দোয়া বিক্রি করে। মানুষকে ম্যানেজ করার জন্য সে দোয়ার কথা বলে ভিক্ষা করে। দানকারীগো মাতাপিতা আল্লা সুখে রাইখো কবরে/ নূরের টুপি মাথায় দিয়া উঠাইবো কাল হাশরে।

৪. ভিক্ষার আসন

হ্যাঁ ভিক্ষার আসনগুলো মানে বেগার পজিশনগুলো বিক্রি হয় এই দেশে। ফার্মগেটসহ জনাকীর্ণ যেসব স্থানে ভালো ভিক্ষা উঠে। এক ধরনের চক্র সেসব জায়গাগুলো এলাকার পুলিশ বা স্থানীয় পাতিনেতাদের কাছ থেকে কিনে। অথবা নিজেরা সেসব পজিশন নিজেদের করে নিয়ে ভিক্ষুকদের কাছে ভাড়া বা ভিক্ষা দেয়।

৫. পুরনো কাপড় ছোপড়

আপনি আমি হয়তো ভাবি কাপড় ছোপড় পুরনো হয়ে গেলে সেগুলো গরিব কাউকে দিয়ে দেব। আবার অনেকে বাসায় ফেলে রাখে। কিন্তু আপনারা নিশ্চয় দেখেন পুরনো কাপড় ছোপড়গুলো কিছু লোকেরা কিনতে আসে। একেবারেই পুরনো আপনার কাছে হয়তো ব্যবহার অযোগ্য কিন্তু সে সেটা কিনে নিচ্ছে। হোকনা দশটাকা পাঁচটাকা তবুও সেটা বাজারে বিক্রিতো হচ্চে।

৬. নষ্ট গেজেট

বিদেশ বিভুইয়ে যারা যান তারা দেখেছেন যে, যেকোনো ইলেকট্রনিক্ন গেজেট বা ঘড়ি একটু এদিক সেদিক হলেই সেগুলো লোকেরা ডাস্টবিনে ফেলে দেয়। আমাদের দেশে আমরা আবার এগুলো কয়েকবার মেইকারের কাছে নিয়ে সারানোর চেষ্টা করে। নেঞায়েত সারানোর অনুপুযুক্ত হলে ফেলে দিই। সেই একই জিনিস আবার ফুটপাতে লোকেদের বিক্রি করতে দেখা যায়।

 ৭. বদলী বা ট্রান্সফার:

সরকারী চাকুরীতে বদলী বা ট্রান্সফার একটি স্বাভাবিক বিষয়। পুলিশসহ কয়েকটি চাকরী আছে। যেগুলো উৎকোচের সুযোগ আছে। তো কোনো কোনো এলাকা রয়েছে সেসব স্থানে বেশী ঘুষ লেনদেন হয়। যিনি একবার এই জিনিস খাওয়া শিখে ফেলেছেন তার জন্য ওই পিকপয়েন্টটা খুব দরকার শোনা যায় সেসব স্থানে বদলি হওয়ার উর্ধত্বনদের মোটা অংকের ঘুষ  দিতে হয়। যেখানে যত বেশী ইনকাম সেখানে যাওয়ার জন্য ততবেশী ঘুষ। মানে দাড়ালো বদলীটাও পয়সা দিয়ে কিনতে হয়।

৮. নবজাতক

শুনতে খারাপ লাগলেও এটাই বাস্তব। তবে এটাকে অন্যগুলোর মতো রেগুলার ঘটনা হিসেবে দেখা ঠিক হবে না। কিন্তু ঘটনাগুলো বিচ্চিন্ন হলেও প্রতিবছর এক দুইটা ঘটনা ঘটে থাকে বটে। যেমন কখনো শোনা যায় হাসপাতালের আয়া বাচ্চা বিক্রির জন্য চুরি করে উধাও। কখনো দেখি অভাবের তাড়নায় বাচ্চা বিক্রি করে দিয়েছে মা।

৯. মুরগীর বিষ্ঠা:

হাসমুরগীর বিষ্ঠা ভালো সার একথা কে না জানে। কিন্তু সার বিক্রি হবে এটাইতো স্বাভাবিক। আজ স্বাভাবিক মনে হলেও পঞ্চাশ বছর আগে এটা ছিলো কল্পনার অতীত। মুরগীর ফার্মগুলো বেশভালো দামে কৃষকদের কাছে মুরগীর পঁচা বিষ্ঠা বিক্রি করে থাকে। কৃষকরা সেটা জমিতে দিয়ে ফলন বাড়ানোর চেষ্টা করেন।

১০. গোবরের চেলি বা গোবরের ঘুটে

গোবরের ঘুটে ভারতে অনলাইনে বিক্রি হচ্ছে এটা দেখে অনেকে চোখ কপালে তুলেছেন। কথাটা মিথ্যে নয়। আমাদের দেশেও গোবরের তৈরী লারকি বিক্রি হয় মন হিসেবে। কখনো কখনো সাধারণ কাঠের লারকির চেয়ে ১০/২০ টাকা বেশী দামে বিক্রি হয়।

আজ এখানেই, আগামী কোনো পর্বে ব্যবসায় বানিজ্যের মজার কোনো বিষয় নিয়ে হাজির হবো। ভালো থাকুন।

Published : আগস্ট ২২, ২০১৬ | 1571 Views

  • img1

  • Helpline

    +880 1709962798