কাস্টমার কেয়ার কেন গুরুত্বপূর্ণ?

Published : আগস্ট ১৪, ২০১৬ | 1434 Views

কাস্টমার কেয়ার

কাস্টমার কেয়ার কেন গুরুত্বপূর্ণ

জাহাঙ্গীর আলম শোভন

 

কাস্টমার কেয়ার মানে কাস্টমারদের যত্নআর্তি করা, খাতির করা। আসলে বিষয়টা তাই। তবে আপনার পন্য বা সেবা যদি কাস্টমারের মনপূত না হয়। কাস্টমারকে সিঙ্গারা চামুচা খাওয়ানো কোনো কাজে আসবেনা। অবশ্য আপনার যদি সিঙ্গারা চামুচার ব্যবসায় হয় তাহলে বিষয়টি আলাদা। িতাই আপনি যে ব্যবসায় করুন কেন। আপনার পন্য ও সেবাটি কাস্টমার যদি সর্বোচ্চ ব্যবহার করতে না পারে। তাহলে আপনার কাস্টমার কেয়ারিং ভালো হলো না। কারণে কাস্টমার কিন্তু আপনার পন্যটি কেনে না? কেনে পন্যের বেনিফিট বা উপযোগিতা। একটা ওয়াশিং মেশিন কিনে কাস্টামার কাপড় ধোয়ার জন্য মেশিন নস্ট বেচে টানাচুর খাওয়ার জন্য নয়।

তাহলে আপনার কাজ হবে পন্য বিক্রয়ের সময়, বিক্রয়ের আগে-পরে কাস্টমার সে সহযোগিতা করা। যা করলে কাস্টমার পন্যটি কাজে লাগাতে পারবে। বুঝতেই পারছেন এটার জন্য প্রথমত আপনার পন্যটি ভালো হতে হবে দ্বিতীয়ত আপনার সেবা।

 

কাস্টমার কেয়ার বিভিন্ন রকম হয়ে থাকে।
১.    আপনি একটি কাস্টমার কেয়ার সেন্টারের মাধ্যমে বিক্রির আগে পরে বিভিনন্ন তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করতে পারেন । এটা বিক্রয় বৃধ্ধিতে একটা প্রভাব ফেলবে।
২.    পন্য বিক্রিয় পর এর বিভিন্ন বিষয় যেমন পন্যের ব্যবহারবিধি, বিবিধ বা কোন প্রশ্নে আপনি একটা কল সেন্টারের মাধ্যমে গ্রাহকের জিজ্ঞাসার জবাব দিয়ে সেবা দিলেন এতে সমস্যা  মেটালেন।
৩.    আপনি২/১ বছরের ওয়ারেন্টি গ্যারান্টি দিয়ে পন্য বিক্রি করলেন। এবং শর্তমত সার্ভিসিং বা রিফ্রেসিং সুবিধা দিলেন।
একসময় মনে করা হতো পন্য বিক্রি করার পর আর বিক্রেতার কোন দায়দায়িত্ব নেই। কিন্তু সে ভাবনা এবং আইডিয়া বর্তমানে বদলে গেছে । আসুন এ বিষয়ে আলোচনা করা যাক-
১.    কাস্টমার শুধু পন্য কিনে না সার্ভিসটাও কিনে
বর্তমান যুগে এই ধারণাটা পরিষ্কার করা হয়েছে যে কাস্টমার শুধু পন্য কেনে না সার্ভিসটাও কেনে। আপনি বাজার থেকে ২টাকা দিয়ে একটা মোমবাতি কিনলেন এর সাথে আপনি মোমবাতির সার্ভিসটাও কিনলেন। কারণ বাসায় আনার পর এটি যদি না জ্বলে তাহলে আপনি হয়তো এটােেক ফেরত দিতে চাইবেন অথবা এটা যদি ভালো না জ্বলে আপনি হয়তো দ্বিতীয়বার আর ওই পন্যটি কিনবেন না। এমনও হতে পারে আপনি আর ওই দোকানেই কোনো কিছু কিনতে যাবেন না। আপনি ভাববেন কেন দোকানী আপনাকে খারাপ পন্য দিলো!। বা ওই দোকানী খারাপ পন্য বিক্রি করে বলে এধরনের একটা ধারণা আপনার মধ্যে তৈরী হবে। আপনি যদি এক কাপ চাও পান করেন কোন টি স্টলে আপনি আশা করবেন চা‘টা খাওয়ার পর আপনার মধ্যে একটা তৃপ্তির পরশ বয়ে যাবে কিন্তু বাস্তবে তা যদি না হয় তাহলে আপনি সেটা পরিহার করবেন। এজন্য পন্য এবং সেবা একই সাথে গাঁথা সেজন্যই আপনাকে কাস্টমার কেয়ারের সাহায্য নিতে হতে পারে।
২.    কাস্টমারের সাথে কানেকটেড থাকুন
আপনি অবশ্যই কাস্টমারের সাথে কানেকটেড থাকতে চাইবেন। আপনার ব্যবসার ভালোর জন্য। কারণ আপনার প্রোডাক্টস একবার বিক্রি করেই শেষ নয়। আপনি আপনার পন্য আরো বেশী এবং বার বার বিক্রি করতে চাইবেন। আর সেজন্যই কাস্টমারের সাথে আপনার কানেকটিভিটি প্রয়োজন। বিক্রয়োত্তর পন্যসেবা একটা ভালো উপায় যা আপনাকে কাস্টমারের সাথে সংযুক্ত থাকতে সাহায্য করবে। আর এই সংযুক্তি হবে আপনার ব্যবসা বিকশিত হওয়ার একটি উপায়।
৩.    কাস্টমার সন্তুষ্টি ও বিশ্বাস অর্জন
আপনার পন্য  বিক্রি হওয়ার পর আপনি গ্রাহককে বিকয়োত্তর সেবা দেবেন তাতে আপনার প্রতি গ্রাহকের আস্থা বাড়বে। গ্রাহক আবারো আপনার পন্য ক্রয় করবে। যিনি এ যাবত আপনার কোন পন্য ক্রয় করেনি তিনিও প্রথমবার পন্য কিনতে ভরসা পাবে। কাস্টমার যদি জানতে পারে আপনার পন্যের বিক্রয়োত্তর সেবা রয়েছে। এবং পন্যের সু্িধা অসুবিধা নিয়ে ফোনে বা সরাসরি কথা বলার এবং সমস্যা সমাধানের সুযোগ আছে  Íাহলে বিক্রয়োত্তর সমস্যার ব্যাপারে নিশ্চিন্ত হতে পারে এবং পন্যটি বিনতে উদ্ভুদ্ধ হতে পারে।
৪.    এক ধরনের ব্রান্ডিং ও মার্কেটিং
কাস্টমার কেয়াররের মাধ্যমে একধরনের মার্কেটিং ও ব্রান্ডিং হয়ে থাকে । যেমন আপনি পন্য ক্রয়ের আগে বা পরে যদি কাস্টমারের সাথে সারাসরি বা ফোনে কথা বলেন কাস্টমার আপনার পন্য সম্পর্কে যেমনি ইনফরমেশন জানবে তেমনি আপনার আত্মবিশ্বাস ও সহযোগি মনোভাব কাস্টমারকে পন্যের ব্যাপারে আশ্বস্ত করবে এবং কাস্টমার এতে পন্য টি ব্যবহারে প্রলুব্দ হবে। আর কাস্টমার বিভিন্ন প্রশ্নে উত্তররের মাধ্যমে পন্যটি সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারেলো। যা আসলে বিজ্ঞাপন বা বিলবোর্ডে লিখা সম্ভব হয়নি।
৫.    পন্যের বাজার তৈরী করা
অনেকসময় নতুন ধরনের পন্য বা সেবা বাজারে আসলে কাস্টমার পন্য এবং তার ব্যবহার সম্পর্কে ওয়াকিবহাল থাকেনা । এসমস্ত কেন্ত্র একটি ফোন সার্ভিস বা তথ্য কেন্দ্র কাস্টমারের কিউরিসিটি দূর করতে পারে এবয়ং পন্যটির ব্যবহার ও উপকার সম্পর্কে ভোক্তা সাধারণকে সচেতন করে পন্যটির বাজার তৈরী করতে সাহায্য করে ।

.    প্রতিযোগিতামূলক বাজারে এগিয়ে থাকে:
ছোট ছোট উদ্যোক্তগণ যারা পন্য কিনে বিক্রি করেন। তাদের ক্ষেত্রে দেখা যায় সবাই প্রাই একই পন্য বাজারে এনে থাকেন । এখন দেখা গেলো সবার পন্যের মান এক এবং দামও প্রায় এক। এই অবস্থায় প্রতিযোগিতামূলক বাজারে অন্যদের চেয়ে আপনি এগিয়ে থাকবেন যদি আপনার কাস্টমসার সার্ভিস থাকে।
৭.  ভুলভ্রান্তি দূর
অনেক সময় দেখা যায় আপনার প্রতিযোগি বাজারে আপনার সাথে না পেরে আপনার পন্য সম্পর্কে একটা বদনাম বা রিউমার ছড়িয়ে দিলো। আর কিছু কাস্টমার এতে করে বিভ্রান্ত হয়ে গেলো। কিন্তু এ অবস্থায় যদি আপনার একটা কাস্টমার কেয়ার, কাস্টমার সার্ভিস, কল সেন্টার থািকে তাহলে ক্রেতারা অনায়াসে ফোন করে তাদের সন্দেহ দূর করতে পারে।
৮.    স্থায়ী বিশ্বাস
কোনো কোম্পানীর সার্ভিস সেন্টার বা কাস্টমার কেয়ার থাকলে ক্রেতারা মনে করে এই কোম্পানী স্থায়ীভাবে ব্যবসা করার জন্য নেমেছে সূতরাং এদেরকে সহজে বিশ্বাস করা যায়।

Published : আগস্ট ১৪, ২০১৬ | 1434 Views

  • img1

  • Helpline

    +880 1709962798