রাসমেলায় কান্তজিউ মন্দির সাথে তেঁতুলিয়ার চা বাগান

Published : অক্টোবর ৩০, ২০১৮ | 1142 Views

কান্তজিউ মন্দিরের রাসমেলা

দিনাজপুর- পঞ্চগড় (উত্তরবঙ্গ ভ্রমণ) দিন রাত: কান্তজিও মন্দিরের রাসমেলা

 

তারিখ : ২২ ও ২৩ নভেম্বর

শুভযাত্রা: ২১ নভেম্বর রাত ৮টায়, কল্যাণপুর থেকে

ঢাকায় পৌছা: ২৪ নভেম্বর সকাল ৭টায়

ভ্রমণের বিশেষত্ব:  কান্তজিও মন্দিরে রাসমেলায় অংশগ্রহণ

দর্শনীয় স্থান: কান্তজিও মন্দির, নয়াবাদ মসজিদ, স্বপ্নপুরি (দিনাজপুর)

চা বাগান, বাংলাবান্ধা জিরো পয়েন্ট, মহানন্দা নদী, দূর থেকে কাঞ্চনজঙ্গা। (পঞ্চগড়)

 

প্রতি বছর কার্ত্তিক মাসের পূর্নিমা তিথিতে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের রাসমেলা বসে। এটা মূলত মনিপুরীদের উৎসব। রাস মানে রস তবে এই রস রাধাকৃষ্ণের আধ্যাত্মিক প্রেমরস। একে রাস উৎসব ও রাসলীলাও বলা হয়। বাংলাদেশের সুন্দরবনের দুবলার চর, কুয়াকাটা, দিনাজপুরের কান্তজিও মন্দির ও মৌলভিবাজারে এই রাস উৎসবকে ঘিরে রাসমেলা অনুষ্ঠিত হয়। তারপরে রয়েছে কুয়াকাটা, দিনাজপুর ও মৌলভী বাজারের রাস উৎসব ও মেলা।

উত্তরবঙ্গ ভ্রমণের প্লান করুন রাসমেলার দিনে। তাতে আপনি এক ঢিলে দুই পাখি মারতে পারবেন।

ভ্রমণ বৃত্তান্ত: ২২ নভেম্বর

ভোর ৫টা পঞ্চগড় পৌছানো

সকাল ৭টা: তেঁতুলিয়ার পৌছে চা বাগান দেখা।

সকাল ৮টা:  সকালের নাস্তা করে ফ্রেস হয়ে বাংলাবান্ধার উদ্দেশ্যে রওনা

সকাল ৯টা: বাংলাবান্ধা পৌছানো

বেলা ১১টা: বাংলাবান্ধা ত্যাগ

দুপুর ১টা: ভেতরগড় আসা, এখানেই দুপুরের লাঞ্চ।

বিকেল ৪টা: বীরগঞ্জের ঐহিত্যবাহী মিষ্টি খাওয়া

সন্ধ্যা ৬টা: পঞ্চগড় এসে ফ্রেস হওয়া। এবং পর্যটন মোটেলে রাতযাপন।

 

ভ্রমণ বৃত্তান্ত:২৩ নভেম্বর

সকাল ৭টা:  নাস্তা করে বের হওয়া

বেলা ৯টা: স্বপ্নপুরি ভ্রমণ

দুপুর ১টা: দিনাজপুর শহরে এসে ঐতিহ্যবাহী খাবারে লাঞ্চ করা

বিকেল ৩টা: কান্তজিও মন্দির দেখা

বিকেল ৪টা: নয়াবাদ মসজিদ দেখা

বিকেল ৫টা: রাসমেলায় অংশগ্রহণ

রাত ৮টা: ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা

 

 

এক নজরে:

ভ্রমণ: দিনাজপুর পঞ্চগড়

যাতায়াত: বাস, ট্রেন ও মাইক্রো

খাবার: স্থানীয় খাবার, সকালে প্রথমদিন ডিম পরটা, দ্বিতীয় দিন খিচুড়ি

দুপুরে: প্রথমদিন দেশীয় মুরগি অথবা মাছ ভাত, সাথে সজ্বি ও ডাল

দ্বিতীয় দিন: হাঁসের মাংস বা মাছ ভাত, সাথে ভর্তা ও ডাল

বিকেলে প্রথম দিন: ফল দিয়ে নাস্তা, দ্বিতীয় মিষ্টি দিয়ে নাস্তা

 

প্রাসঙ্গিক কথা:

১. যেকোনো এলাকায় ভ্রমণে যাওয়ার আগে সেখানকার ইতিহাস ঐতিহ্য নামকরণ জেনে নিন।

২. যেখানে ভ্রমণে যাবেন সেখানকার মানুষের জীবন-যাত্রার প্রতি শ্রদ্ধা রাখুন।

৩. যেখানে সেখানে ময়লা ও থুথ ফেলবেন না।

৪. প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম সাথে নিন।

৫. টাকা পয়সা, এনআইডি কার্ড, মোবাইল চার্জার, পাওয়ার ব্যাংক ইত্যাদি দেখে নিন।

৬. স্থানীয় লোকজনের সাথে যোগাযোগ করে রাখুন।

৭. কোথায় কার সাথে যাচ্ছেন, বাড়ীতে জানিয়ে রাখুন।

৮. মনে রাখবেন যেখানে যাবেন সেখানে সবকিছু আপনার মনের মতো হবে এমনটা মনে করার কোনো কারণ নেই। তাই বাস্তবতা বুঝে পরিস্থিতির সাথে নিজেকে খাপ খাইয়ে নিন।

Published : অক্টোবর ৩০, ২০১৮ | 1142 Views

  • img1

  • অক্টোবর ২০১৮
    সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
    « সেপ্টেম্বর    
    ১০১১১২১৩১৪
    ১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
    ২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
    ২৯৩০৩১  
  • Helpline

    +880 1709962798