ভালো থাকার খাদ্যাভ্যাস

Published : আগস্ট ২৯, ২০১৭ | 1055 Views

লাইফ স্টাইল টিপস

লাইফ স্টাইল টিপস, খাদ্য ও খ্যাদ্যাভাস

দেশ জাতি ও সংস্কৃতিভেদে খাদ্য ও খাদ্যভ্যাস আলাদা জিনিস। কারো কাছে খাদ্য আবার কারো কাছে অখ্যাদ্য। খাদ্য কখনো কখনো সমস্যার কারণ হয়ে দাঁড়ায় আবার কখনো কখনো খাদ্য হয়ে পড়ে রোগ নিরাময়ের ঔষধ। এমন কিছু বিষয় আজ জেনে নেয়া যাক।

১. ঔষধ নয় পথ্য

অসুখের জন্য আমরা শুধু ঔষধ খাবে তা নয়। পথ্যও কাজে লাগে যেমন-  পেঁয়াজ হাঁপানিতে  রোগীদের শ্বাসনালীর সংকোচন রোধে  ভূমিকা রাখে। পেটের পীড়ায় খাওয়া যেতে পারে কলা ও আদা। আদা আবার মর্নিং সিকনেস এবং বমি বমিভাব দূর করে। বমির জন্য এলাচও বেশ কার্যকর, অনেকে পানের সাথে খান। ঠাণ্ডয় রসুন খেলে অনেকটা উপশম পাওয়া যায়। এটা ক্যান্সারের ঝুকি কমায়। স্তন ক্যান্সার প্রতিরোধে গমজাত খাদ্য ও বাঁধাকপি কার্যকর। আলসারের সমস্যায় বাঁধাকপি বিশেষভাবে উপযোগী।

২. পুরো সপ্তাহের সালাদ

একটা বড় পাত্রে অনেকটা করে ফ্রুট স্যালাড বানান। তরমুজ, পাকা পেঁপে, আনারস, স্ট্রবেরি, সাদা ও কালো দু’রকম আঙুর, বেদানা ইত্যাদি বেশি করে মিশিয়ে ছোট ছোট ৬টি এয়ার কন্টেনারে সেগুলি ভরে ফেলুন। প্রতিদিন সকালে অফিস বা কলেজ বেরনোর আগে একটি করে কৌটো জাস্ট ব্যাগে পুরে নিন। শরীর ভাল থাকবে।

৩. নানাগুনের মধু

নানাগুণের অধিকারী মধু। অসাড়তা, গলাব্যথা, মানসিক চাপ, রক্তস্বল্পতা, অস্টিও পোরেসিস, মাইগ্রেনসহ নানা শারীরিক সমস্যায় মধু বিশেষভাবে কার্যকর। অনিদ্রার সমস্যায় মধু কার্যকর। মধু বয়স ধরে রাখতেও ভাল ভূমিকা রাখে। মধুর রয়েছে রোগ প্রতিরোধের বিশেষ ক্ষমতা।

 

৪. বদলে নিন খাবার তালিকা

ভাত, দুধ, চিনি, নুন যতটা কম সম্ভব খান। শাক, গাজর, আঙুর, টোম্যাটো আসুক আপনার খাদ্যতালিকায়। লেবু-জল বা মধু হয়ে উঠতে পারে জাদুকাঠি। নরম পানীয় নৈব নৈব চ। খাবার কিন্তু মোটা চিকন হওয়ার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ। কারণ এমন না যে কাল আপনি খাবার কমিয়ে স্লিম হয়ে যাবেন অথবা ফলমূল খেয়ে শক্তিশালী হয়ে যাবেন। বিপাক পক্রিয়ায় শরীরের বিভিন্ন ধরনের খাদ্য বিভিন্ন পরিমানে প্রয়োজন হয়। তাই সঠিক খাবার সঠিক পরিমানে খান। মেদ বাড়তে সহায়ক রিচ ফুড, ভাত, মাংশ, চিনি এসব থেকে বিরত হোন।

 

৬. খাদ্যাভ্যাস

সুষম খাবার খান। খাবারে বৈচিত্র নিয়ে আসুন। বিভিন্ন ধরনের খাদ্য উপাদান সংক্রান্ত খাবার খাবেন। অল্প করে ঘন ঘন খাবেন। খাবারের সময় পানি না খেয়ে কিছুক্ষণ আগে পরে খাবেন। ঘুমের ১ ঘন্টা আগে খাবেন। তেল, নুন মসলা এসব খাওয়া ছেড়ে দিন। তাতে আপনার ভালো থাকার সম্ভাবনা বেড়ে যাবে।

 

রসনার পুজা না করে নিজের সুস্থ্য ও সুন্দর জীবনের কথা ভেবে খাদ্যাভ্যাস গড়ে তুলুন।

লেখা: জাহাঙ্গীর  আলম শোভন

Published : আগস্ট ২৯, ২০১৭ | 1055 Views

  • img1

  • Helpline

    +880 1709962798