ধান নদী খাল এই তিনে বরিশাল

Published : এপ্রিল ৫, ২০১৭ | 2753 Views

ধান নদী খাল এই তিনে বরিশাল

প্রানের শহর বরিশাল।  এই শহর অনেক সমৃদ্ধ সেই প্রাচিন কাল থেকেই। এর প্রাচিন নাম ছিল “বাকলা চন্দ্রদীপ” বা চন্দ্রদীপ বর্তমানে বরিশাল নামেই পরচিত। এই শহরটি কীর্তন খোলা নদীর তীরে অবস্থিত । এই রাজ্যের রাজধানী ছিল বাকলা। ১৮৫৪ সালে রাজধানী মাধবপাশায় স্থানান্তরিত হয়। এই রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন দনুজ মাধব বা দনুজ মর্দন দেব।

প্রকৃতির অপরূপ সুন্দর্যের লিলাভুমি এই জেলা। সমুদ্র কন্যা কুয়াকাটার অবস্থানও এর মাঝে যেখানে সুর্যদয় আর সুর্যাস্ত দুটোই উপভোগ করা যায়। প্রকৃতির আভার মাঝেও আছে আধুনিক সব সুযোগ সুবিধা, আধুনিক বিমান বন্দর, নৌ বন্দর, হাই টেক পার্ক সহ আরও অনেক কিছু।এই শহরকে আবার প্রাচ্যের ভেনিস বলা হয়! বরিশাল পৌরসভা অনেক আগেই গঠিত হয়েছিল ব্রিটিশ শাসনামলে ১৮৭৬ সালে। ১৭৯৭ সালে বাকেরগঞ্জ জেলা সৃষ্টি হয়। সাবেক বাকেরগঞ্জ জেলাকে পরবর্তীতে বরিশাল বিভাগ ঘোষনা করা হয়।

প্রাচীন নিদর্শনাদি ও প্রত্নসম্পঃ রামমোহনের সমাধি মন্দির, সুজাবাদের কেল্লা, সংগ্রাম কেল্লা, শারকলের দুর্গ, গীর্জামহল্লা, বেল্স পার্ক, এবাদুল্লা মসজিদ, কসাই মসজিদ, অক্সফোর্ড গির্জা, শংকর মঠ, মুকুন্দ দাসের কালীবাড়ি, ভাটিখানার জোড় মসজিদ, অশ্বিনী কুমার টাউন হল, চরকিল্লা, দুর্গাসাগর দিঘী, এক গম্বুজ মসজিদ (কসবা), সাড়ে তিনমন ওজনের পিতলের মনসা (বড় বানিয়া বাড়ি)।

বিখ্যাত খাবারের নাম নিতাইয়ের কাঁচা গোল্লা (বরিশাল)বরিশালের নারকেল নাড়ু,আমড়া,বরিশালের শশী মিষ্টি। এছাড়া বরিশালের হাতে ভাজা মুরি চিড়া ও খইও বেশ ভালো এবং জনপ্রিয়। বর্তমানে বরিশালের পেয়ারা দেশজুড়ে জনপ্রিয়। বরিশালের খাল নদীতে ভাসমান পেয়ারা বাজার দেখতে প্রতিবছর হাজার হাজার মানুষ ভীড় করেন। বরিশালের শষ্য- পান, পেয়ারা, আমড়া, মাছ, শীতল পাটি, সুপারি, নারিকেল, ধান, চাল।

নদী সমূহ: মেঘনা. কীর্তনখোলা, আড়িয়ালখাঁ, কালাবদর, পায়রা, সন্ধ্যা ও সুগন্ধা।

বরিশালে যাদের জন্ম: শেরে-বাংলা এ কে ফজলুল হক (রাজনীতিবিদ), শহীদ আলতাফ মাহমুদ (সুকার ও মুক্তিযোদ্ধা), অশ্বনী কুমার দত্ত, ব্রজমোহন রায়, কবি জীবনানন্দ দাশ, কবি মুকুন্দদাস, শশি ভূষণ দাশ গুপ্ত, কবি সুফিয়া কামাল, আরজ আলী মাতুব্বর (দার্শনিক), শহীদ আব্দুর রব সেরনিয়াবাত (রাজনীতিবিদ), কবি বিজয় গুপ্ত (মনসা মঙ্গল গ্রন্থের প্রনেতা), মেজর এম.এ জলিল (মুক্তিযোদ্ধা), আগাবাকের খাঁ (রাজনীতিবিদ), জ্যোতির্ময় গুহঠাকুরতা (শহীদ বুদ্ধিজীবি), সৈয়দ আজিজুল হক নান্না মিয়া (রাজনীতিবিদ)।

এই জেলা বিখ্যাত অনেক কারনে শিক্ষা, সংস্কৃতি, নদীবন্দর, মাছ, ধান, আর অনেক বিখ্যাত ব্যক্তিদের জন্মস্থান এই জেলা যেমন- শের এ বাংলা এ কে ফজলুলহক, জীবনানন্নদ দাশ, আব্দুল গফফার চৌধুরী, আলতাফ মাহমুদ সহ আরো অনেকে। এই জেলার রয়েছে শতবর্শীয় পুরনো বিদ্যাপিঠ অক্সফোর্ড মিশন, আরো অনেক সম্মৃদ্ধ স্কুল ও বিশ্ববিদ্যালয়।রয়েছে অনেক ঐতিহাসিক স্থান যেমন- দুর্গা সাগর, গুঠিয়া মসজিদ, অক্সফোর্ড মিশন চার্চ, সুজাবাদ কেল্লা, সংগ্রাম কেল্লা সহ অনেক স্থান।
সদরঘাট থেকে সুরভী, সুন্দরবন, পারাবতসহ বেশ কিছু লঞ্চে বরিশাল যাওয়া যায়। ছাড়ে রাত ৮টায়। কেবিন ভাড়া ৮৫০ থেকে ১৮০০ টাকা। ডেকের ভাড়া ১৫০ টাকা।
এ ছাড়া ঢাকার সায়েদাবাদ বা গাবতলী থেকে সাকুরা, হানিফ, জিএমসহ বেশ কিছু পরিবহনের বাসে বরিশাল যাওয়া যায়।
রাত কাটানোর জন্য বরিশালে বেশকিছু হোটেল রয়েছে। যেমন হোটেল আলী ইন্টারন্যাশনাল, হোটেল পুনম, হোটেল দিদার, হোটেল গুলবাগ, হোটেল নূপুর, হোটেল ইম্পেরিয়াল ইত্যাদি।

বরিশালের বহু দর্শনীয় স্থানের শুধু তালিকা পাই সবগুলোর উপর লেখা ও ছবি পাইনা। হয়তো বই পত্রে আছে কিন্তু নেটে অর্ধেক আছে অর্ধেক নাই। এমনকি ফেসবুকে খুজতে গিয়ে দেখলাম। কয়েকহাজার মানুষ শুধু দর্শনীয় স্থানের তালিকা শেয়ার করেছে। সুজাবাদের কেল্লা, সংগ্রাম কেল্লা, সারকলের দূর্গ, চায়ণা কবর, চাখার জাদুঘর এরকম অনেক কিছু সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য পেলামনা কোনো কোনোটার ছবিও পাইনি। অথচ বাংলাদেশের বেশীরভাগ জেলার উপর আমার লেখা প্রায় শেষ। বরিশাল নিয়ে যতটা সমস্যায় পড়েছে বিশেষ করে নেটে তথ্য খুঁজতে গিয়ে এমনটা আর কোনো বিভাগ বা জেলার ক্ষেত্রে হয়নি। আপনারা যারা সচেতন আছেন তারা যদি একটু একটিভ হয়ে স্থান গুলো যখন ঘুরতে যান তখন ছবি তুলতে পারেন। আমাদের একটা প্রবণতা হলো আমরা নিজেদের ছবি আর সেলফি তুলি। ‍কিন্ত সে স্থানটিকে সুন্দর বলে সেখানে ঘুরতে গিয়েছি তার একটা সুন্দর ছবি তুলিনা।

সরকারী অফিসগুলো থেকে স্থানীয় সাংবাদিকদেরকে দিয়ে ওই স্থানগুলো ঐতিহাসিক তথ্য ও বর্তমান অবস্থা জেনে নিতে পারেন। ব্লগে, পত্রিকায় এবং ফেসবুকে আস্তে আস্তে একটা একটা করে পোস্ট দিতে পারেন। এটা করলে আপনার দেশের জন্য কিছু কাজ করা হবে। বরিশালের ভাইয়েরা যতটা কপি পেস্ট করতে আর তালিকা শেয়ার করতে আগ্রহী। নতুন করে লিখতে, তথ্য বের করে আনতে, কিংবা নিজের মতো করে প্রকাশ করতে ততটা আগ্রহী নয়। তাহলে এই সমস্যা হতো না। তাই আপনাদেরকে এগিয়ে আসার অনুরোধ করছি। ধন্যবাদ। ভাই।

ইন্টারনেট অবলম্বনে জাহাঙ্গীর আলম শোভন

ছবি: সংগ্রহ

Published : এপ্রিল ৫, ২০১৭ | 2753 Views

  • img1

  • এপ্রিল ২০১৭
    সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
    « মার্চ   মে »
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
  • Helpline

    +880 1709962798