স্পেনের টমেটো উৎসব: লা টমাটিনা

Published : নভেম্বর ১০, ২০১৬ | 1465 Views

স্পেনের লা টমাটিনা উৎসব

স্পেনের দক্ষিণ-পূর্বে  ছোট্ট শহর বুঁয়্যোল। প্রতিবছর আগস্টের শেষ বুধবার হাজারো মানুষের গন্তব্যস্থান হয়ে এই ছোট শহর। টমেটো ফেস্টিভাল। এ উৎসবে অংশগ্রহণকারীরা পরস্পরকে পাকা টমেটো ছুড়ে মারে। টমেটোর লাল রসে ভিজে একাকার হয়ে যায় অংশগ্রহণকারীরা। স্পেনের বুঁয়্যোল শহরের রাস্তা সেদিন টনকে টন টমেটোতে ভরে ওঠে। টসটসে পাকা টমেটোর রসে সবাই মাখামাখি না হওয়া পর্যন্ত চলতে থাকে উৎসব । ১৯৪৪ সালে ভ্যালেন্সিয়া থেকে ৩৮ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত এই গ্রামটিতে শুরুহয়েছিল ‘লা টমাটিনা’ উৎসব। ঐতিহ্য নয়, টমেটোবোঝাই একটি লরি রাস্তায় কাত হয়ে পড়ে গেলে শিশুে থেকে পরে উপস্থিত লোকজনের মধ্যে ওই টমেটো ছুড়ে মারা শুরু হয়েছিল অন্যমতে, মাপেটের মিছিলে কোনো এক বাজে গায়ককে উদ্দেশ করে টমেটো ছুড়ে মারা থেকে এই উৎসবের শুরু।

b417bc2181abd75d7f9e5e47107eebfd
মজার ব্যাপার হলো আজ যে টমেটো খেলার জন্য সারা বিশ্ব থেকে হাজারো পর্যটক এই শহরে জমা হয় এবং ট্যুরিজম থেকে তারা ডলার কামায় এই টমেটো খেলার অপরাধেই বহু মানুষকে আটক করেছিলো পোরেসিটি কতৃপক্ষ। পুলিশি নিষেধাজ্ঞায় ১৯৫০-৫৭ সাল পর্যন্ত বন্ধ থাকার পর জনমত গঠনে এক ব্যঙ্গাত্মক কর্মসূচি হাতে নেয় শহরের উৎসাহী লোকেরা।
২০০২ সালে পর্যটকদের বিপুল উৎসাহ ও যোগদানের কারণে স্পেন সরকার একে ‘আন্তর্জাতিক পর্যটন উৎসব’-এর মর্যাদা দেয়। প্রতি বছর প্রায় ১৫০টনেরও বেশি টমেটো দিয়ে এদিন শহরের রাস্তা নদী বানিয়ে ফেলে স্থানীয় লোকজনসহ পর্যটকরা। উৎসব সকালে শুরুহয়ে দুপুর পর্যন্ত চলে। উৎসবের শুরুত বিশাল এক টুকরা মাংস রাখা হয় একটা পিচ্ছিল খাম্বার উপরে। শর্ত থাকে খাম্বা বেয়ে সেটিকে নামিয়ে আনতে হবে। এটা আনার সময় নাচ-গান আর হোস পাইপ দিয়ে পানিতে ভেজা চলতে থাকা। মাংসটি নামানো হলে শুরু হয় টমেটোর যুদ্ধ। একে অপরের গায়ে ছুঁড়ে থেতলে দেয় পাকা টমেটো।
উৎসব উপলক্ষে বুঁয়্যোল শহরের নানা স্থানে বসে গানের আসর; কুচকাওয়াজ, নাচানাচি এবং আতশবাজিও চলে সপ্তাহজুড়ে। টমেটো যুদ্ধের পর রাতে বসে রান্নাবান্নার প্রতিযোগিতা। স্থানীয়দের মতে, এক সময় বুঁয়্যোল শহরে মানুষের তেমন আসা-যাওয়া ছিল না। শহরের লোকসংখ্যাও ছিল কম। এ অঞ্চলে প্রচুর পরিমাণে টমেটো উৎপাদন হলেও উপযুক্ত ব্যবহারের অভাবে তা নষ্ট হয়ে যেত। পঞ্চাশ হাজার পর্যটক আসে বুনিয়্যল শহরের জনসংখ্যা মাত্র ৯ হাজার। ছোট্ট একটা শহরে জনসংখ্যার চেয়ে পাঁচ গুণ বেশি মানুষের সেই ভিড় সামাল দেয়া আর শৃঙ্খলা বজায় রাখতে পরের বছর থেকেই টিকিট ছাড়া শুরু করল নগতর কর্তৃপক্ষ। টিকিটের দাম ১০ ইউরো, তবে এটা কেবল অনুমতিপত্র মাত্র। থাকা-খাওয়া আর যাতায়াতের ব্যবস্থা করতে হবে নিজেকেই। অবশ্য এ জন্য আছে ডজন ডজন বেসরকারি টুরিস্ট প্রতিষ্ঠান। মাত্র ঘণ্টাব্যাপী এই টমেটো লড়াইয়ের জন্য ব্যয় হচ্ছে আনুমানিক এক লাখ ৪০ হাজার ইউরো। সেই হিসাবে প্রতি মিনিটে খরচ দুই হাজার ৩০০ ইউরো। অনেকটা হোলি খোলার মতোই চলে এই আয়োজন।

টমেটো লড়াইয়ের যোদ্ধাদের অনেককেই পাশের বুনিয়ল নদীতে ঝাঁপিয়ে পড়ে। এ ছাড়া শহরের অলিগলির বাসাবাড়ির অনেক গৃহকর্তা-গৃহকর্ত্রীকেও দেখা যায় হোসপাইপ নিয়ে দাঁড়িয়ে অতিথিদের গোসলে সহযোগিতা করতে।
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, চীন, কলম্বিয়া, চিলিসহ বেশ কয়েকটি স্থানেই এখন প্রতি বছর আয়োজন হয় টমেটো লড়াইয়ের উৎসব।

ইন্টারনেট অবলম্বনে জাহাঙ্গীর আলম শোভন

Published : নভেম্বর ১০, ২০১৬ | 1465 Views

  • img1

  • Helpline

    +880 1709962798