ই-কমার্সে প্রোডাক্ট সোর্সিং এর গুরুত্ব

Published : নভেম্বর ৫, ২০১৬ | 1163 Views

ই-কমার্সে প্রোডাক্ট সোর্সিং এর গুরুত্ব

জাহাঙ্গীর আলম শোভন
ই কমার্সে প্রোডাক্ট সোর্সিং এর গুরত্ব বর্ণনাতীত। একজন ই-কমার্স উদ্যোক্তা এক বা একাধিক সোর্স থেকে পন্য বা সেবা সংগ্রহ করে তার ক্রেতা বা ভোক্তাদের নিকট পৌঁছে দেন। একজন ব্যবসায়ী যখন অনলাইনে পন্য বিক্রি করেন তখন তার ক্রেতাগণ তার দেয়া পন্যের ছবি ও বিবরনী দেখে তা থেকে পন্য ক্রয়ের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন এবং পন্য ক্রয় করেন। কিন্তু পন্য ক্রয়ের পর এর ছবি বা বিবরনীর সাথে যদি বাস্তবতার মিল না থাকে তাহলে যিনি তথ্য দিয়েছেন তিনি ভোক্তাসাধারণের কাছে প্রতারণার দোষে দুষ্ট হবেন। এমনকি তার ব্যবসায়কি সুনাম নস্ট হবে, অপেশাদার আচরণ ও সিদ্ধান্তের জন্য তিনি দিন দিন ক্রেতাসন্তুষ্টি হারাবেন এবং একদিন তার গোটা ব্যবসায়টাই বন্ধ হয়ে যেতে পারে। কোনো ক্ষেত্রে তিনি ভোক্তা অধিকার আইনে অভিযুক্ত, দন্ডনীয় এমনকি নিষিদ্ধও হতে পারেন।
ই-বিজনেস উদ্যোক্তাগণ অনেকসময় অনলাইনের বিভিন্ন সূত্রের উপর নির্ভর করে প্রোডাক্ট সোর্সিং করেন এবং সরবরাহ করেন এই পক্রিয়াটি যথাযথ এবং স্বচ্চ না হলে কিন্তু এর দায় দায়িত্ব উদ্যোক্তাকে নিতে হয়। এজন্য ই-বিজনেস মডিউলে এ ব্যাপারে প্রতিটি পদেেক্ষপ সর্তকতার সাথে দেয়া উচিত।  একজন ই-কমার্স ব্যবসায়ী বেশীরভাগ ক্ষেত্রেই হয়তো পন্যটি উৎপাদন করেন না। কিন্তু সাধারণের কাছে তিনিই পন্যটির বাজারজাতকারী তাই পন্যের সঠিক গুনমান বুঝে না পেলে তিনিই আক্রোসের শিকার হয়ে থাকবেন।
একজন ব্যবসায়ীকে ব্যবসায়িক জগতে প্রতিষ্ঠা পাওয়া জন্য পেশাদারিত্ব অর্জন করতে হয়। চর্চা করতে হয় ব্যবসায়িক নীতিকতা ও ক্রেতাবান্ধব আন্তরিক আচরনের। সঠিকভাবে ব্যবসায়িক কাজ পরিচালনা করাও সাফল্যের শর্ত। ব্যবসায়িক কাজের বিরাট অংশজুড়ে রয়েছে প্রোডাক্ট সোর্সিং। সূতরাং এই গুরুত্বপূর্ণ কাজটিকে সঠিক ও পেশাদার পথে সম্পাদন করতে হবে। নিজের স্বার্থে এবং নিজের ক্রেতাদের স্বার্থে সর্বোপরি ব্যবসায়িক সার্থে। এই কথা কোনো নির্দিস্ট ব্যবসায়ের জন্য প্রযোজ্য নয় বরং সব ব্যবসায়ের মূল বিষয়। তেমনি ই-কমার্সও তার বাইরে নয়।

আমাদের দেশে আর্থ সামাজিক অবস্থার অনিশ্চয়তা হেতু প্রতিনিয়ত আমরা নানাবিধ সামাজিক অপরাধপ্রবণতা দেখতে পাই। বলাবাহুল্য ব্যবসায়িক খাতও এর বাইরে নয়। ইন্টারনেটে ব্যবসায় করার সময় ক্রেতা বিক্রেতার অবস্থানগত দূরত্বকে পুঁজি করে সুযোগ নিতে পারে প্রতারক চক্র। এতে করে পুরো ই-কমার্স জগেতে একটা বিশ্বাসের সংকট দেখা দিতে পারে। ই -মার্স একটি উদীয়মান কর্মসংস্থান খাত। এমনটা হলে অংকুরেই সংকটের আবর্তে ঘুরপাক খেতে থাকবে তরুন প্রজন্মের কাছে আশা জাগানিয়া এই ব্যবসায়িক মাধ্যম। তাই সকলের স্বার্থে আমাদের সবাইকে সতর্ক ও সচেতন থেকে এর মোকাবিলা করতে হবে।
ব্যবসায়ের উন্নতির উদ্দেশ্যে, নৈতিকতার স্বার্থে, পেশাদারিত্বের অনুশীলনে, ক্রেতাদের প্রতি সামাজিক ও নৈতিক দায়িত্বের কথা মাথায় রেখে একজন ই কমার্স উদ্যোক্তা তার পন্য বা সেবা সঠিক ও সম্পূর্নরুপে সোর্সিং করবে এবং সে অনুযায়ী তার গ্রাহকদের সাথে তথ্য বিনিময় করবে ক্রেতা সাধারণ এমনটাই আশা করে। এর ব্যত্যয় ঘটলে পুরো ব্যাপারটাই ওলটাপালট হয়ে যায়। তাই ব্যবসায়ে সততা, নৈতিকতা ও স্বচ্ছতার কোনো বিকল্প নেই। বিকল্প নেই সঠিক প্রোডাক্ট সোর্র্সিং এরও।

Published : নভেম্বর ৫, ২০১৬ | 1163 Views

  • img1

  • Helpline

    +880 1709962798